Print

৩ মাসের মধ্যে চুরি যাওয়া অর্থ ফেরত পাবে বাংলাদেশ: এএমএলসি

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ২০.০৪.২০১৬

আগামী ৩ মাসের মধ্যে রিজার্ভের চুরি যাওয়া অর্থ বাংলাদেশকে ফিরিয়ে দেয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছে ফিলিপিন্সের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল-এএমএলসি।

মঙ্গলবার ফিলিপিন্স সিনেটের ব্লু রিবন কমিটির শুনানিতে এ আশা প্রকাশ করেন এএমএলসি'র মহাপরিচালক জুলিয়া অ্যাবাট। এ সময় তিনি বলেন, এ অর্থ বাজেয়াপ্ত করে দ্রুতই বাংলাদেশকে ফিরিয়ে দেয়া সম্ভব হবে।

তবে এজন্য অবশ্যই বাংলাদেশকে ফিলিপিন্সের আদালতে মামলা করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় চীনা ব্যবসায়ী কিমসহ আরো অনেক ক্যাসিনো অপারেটরের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে এএমএলসি।

এদিকে আরো ৪ কোটি ৮০ লাখ পেসোর খোঁজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ফিলিপিন্সের সিনেট কমিটির প্রধান তৃতীয় তেওফিস্তো গুইংগোনা। যা ফিলিপিন্স অ্যামিউজমেন্ট অ্যান্ড গেমিং করপোরেশনের কাছে রয়েছে।

ফিলিপিন্সের কংগ্রেসে বাজেট আইন চালুর পরই এ অর্থ বাংলাদেশকে ফেরত দেয়া সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তেওফিস্তো। এখনো পর্যন্ত রিজার্ভের চুরি হওয়া অর্থের মধ্যে প্রায় ১ কোটি ডলার এএমএলসি'র কাছে ফেরত দিয়েছেন ব্যবসায়ী কিম অং।

রিজার্ভের চুরি যাওয়া ৮ কোটি ১০ ডলারের মধ্যে ফিলরেমের মাধ্যমেই ৬ কোটি ২০ লাখ ডলার পেসোতে রূপান্তর করে কিম ওংয়ের ক্যাসিনোতে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট সালুদ বাতিস্তা। অন্যদিকে ক্যাসিনো এজেন্ট ওয়েক্যাং শু এর কাছে আরো ১ কোটি ৮০ লাখ ডলার দিয়েছেন বলেও সিনেট ব্লু-রিবন কমিটির ষষ্ঠ দফা শুনানিতে জানান তিনি।