Print
গরমের হাওয়ায় নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যে
বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ২৯.০৪.২০১৬

টানা তিনদিন সরকারি ছুটি।

তারপরও রাজধানীর বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম গত সপ্তাহের চেয়ে বেড়েছে।এ সপ্তাহে রাজধানীর বাজারে দাম বেড়েছে আলু, ডাল, রসুন, মাংস ও সবজির। আর গত সপ্তাহের বৃদ্ধি পাওয়া দামে এ সপ্তাহের বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতারা এমন তথ্য জানান।বিক্রেতারা বলছেন, আমদানি কমে যাওয়ায় সব জিনিসের দাম বেড়েছে।অন্যদিকে ক্রেতারা বলছেন, রমজানকে সামনে রেখে আস্তে আস্তে পণ্যের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা করছেন বিক্রেতারা। একবারে যেন অনেক দাম না বাড়ে এ জন্য এখন থেকে প্রতি সপ্তাহে অল্প অল্প করে দাম বাড়াচ্ছে।

সাধারণত এ মাসে বিয়ের অনুষ্ঠানসহ অন্যান্য অনুষ্ঠান বেশি হয়। ফলে দেশি মুরগির চাহিদা বেড়ে গেছে। ছোট আকারের দেশি মুরগি থেকে রোস্ট তৈরি হয়, যোগ করেন বিক্রেতারা।আকারভেদে দেশি মুরগি কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৩শ’ থেকে ৩২০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিলো ২৮০ থেকে ৩শ’ টাকা। পাকিস্তানি মুরগির পিস ২৪০ টাকা থেকে ২৬০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। ব্রয়লার প্রতি কেজি ১৬০ টাকা আর লেয়ার কেজি প্রতি ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।এদিকে গত মাসে বেড়ে যাওয়া দামের সঙ্গে কেজিতে পাঁচ টাকা যোগ হয়ে এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ডাল। বাজারভেদে মসুর ডাল (দেশি) ১৭৫ টাকা, আমদানি করা ডাল ১৪৫ টাকা ও ক্যাঙ্গারু ১৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।গত সপ্তাহের পাঁচ টাকা বেশি দামে এ সপ্তাহে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজ ৩৫ টাকায়।ধীরে ধীরে বাড়ছে আলুর দামও। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২২ থেকে ২৫ টাকায়।

এ সপ্তাহে অধিকাংশ সবজির দামের সঙ্গে ৫ থেকে ১০ টাকা যোগ হয়েছে। শিম ৪৫ টাকা, ঢেঁড়শ ৫০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১০০ টাকা, ধনেপাতা ১২০ টাকা, পেঁপে ৪০ টাকা, শসা-টমেটো-করলা ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। সব ধরনের শাক ২০ থেকে ৩০ টাকা (আঁটি) এবং মিষ্টি কুমড়া (ফালি) ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।গত সপ্তাহের অপরিবর্তিত দামে রাজধানীর বাজারে ডিম বিক্রি হচ্ছে। ফার্মের মুরগির ডিমের হালি ৩০ টাকা ও ডজন ৯০ টাকা। হাঁসের ডিমের হালি ৩৪ টাকা ও ডজন ১০২ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের হালি ৫০ টাকা ও ডজন ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ সপ্তাহে আমদানি করা রসুনের অপরিবর্তিত থাকলেও, বেড়েছে দেশি রসুনের দাম।

বিক্রেতারা বলছেন, তিন মাস আগে নতুন দেশি রসুন ফসলের জমি থেকে ঘরে তুলেছেন কৃষকরা। সেই রসুন শুকিয়ে, পরিষ্কার করে বাজারে এনেছেন তারা। এজন্য দাম বাড়ছে রসুনের। প্রতি কেজি রসুন (আমদানি) ২শ’ থেকে ২১০ টাকা। দেশি রসুন মানভেদে ১শ’ থেকে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
‍আগের দামেই ৬০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে খাসির মাংস। তবে এ সপ্তাহে গরুর মাংস ১০ থেকে ২০ টাকা বেশি দামে বাজারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪৩০ থেকে ৪৪০ টাকায়।মাছ বাজারেও লেগেছে গরমের হাওয়া। রুই মাছ (ছোট) ২৫০ টাকা, রুই (বড়) ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা, ছোট কাতলা ২৮০ টাকা ও বড় ৩২০ টাকা, তেলাপিয়া ২০০ থেকে ২৪০ টাকা, চিংড়ি (ছোট) ৫০০ টাকা কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে।