Print

ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংক নির্বাহীর পদত্যাগ

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৬.০৫.২০১৬

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় তদন্ত‍াধীন ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) প্রেসিডেন্ট ও প্রধান

নির্বাহী কর্মকর্তা লরেঞ্জো ভি. তান পদত্যাগ করেছেন।শুক্রবার (৬ মে) আরসিবিসির পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, লরেঞ্জো ভি. তান পদত্যাগ করেছেন। তার পদত্যাগপত্র ব্যাংকের পরিচালনা পরিষদ গ্রহণ করেছে। ৬ মে থেকেই এ পদত্যাগ কার্যকর হচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ব্যাংকের ভবিষ্যৎ গতিপথ নির্ধারণে পরিচালনা পরিষদকে পুরোপুরি স্বাধীনতা দিতেই তিনি পদত্যাগ করেছেন।’

আরসিবিসির বিবৃতিতে জানানো হয়, লরেঞ্জোর পদে কেউ নির্বাচিত হওয়ার আগ পর্যন্ত ব্যাংকের কার্যক্রম প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দেখাশোনা করবেন হেলেন ওয়াই. ডি।

ব্যাংকটির পক্ষ থেকে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার রিজার্ভ চুরির ঘটনার অভ্যন্তরীণ তদন্তে লরেঞ্জোর বিরুদ্ধে ব্যাংকের বিধিমালা ও নীতিমালা লঙ্ঘনের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

ফিলিপাইনের ইতিহাসের মুদ্রা পাচারের সবচেয়ে আলোচিত এই ঘটনার তদন্ত শুরু হওয়ার পর গত এপ্রিলে পদত্যাগ করেন আরসিবিসির ট্রেজারার ও নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট রাউল ভিক্টর তান। লরেঞ্জোর মতো তাকেও সব ধরনের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

রাউলের অধীনেই কাজ করতেন আরসিবিসির মাকাতি শহরের জুপিটার শাখার ব্যবস্থাপক মায়া সান্তোস দেগিতো। আর এই দেগিতোই রিজার্ভ লোপাটের প্রধানতম চরিত্র।

লোপাট হওয়া অর্থের একটি অংশ দেগিতোর এই শাখায় থাকা কয়েকটি অ্যাকাউন্ট হয়ে স্থানীয় তিনটি ক্যাসিনোতে চলে যায়।

অভিযোগ রয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে পাচার করে আরসিবিসিতে রাখা হয়, যাতে অভিযুক্ত দেগিতো।

আলোচিত এই লোপাটের ঘটনায় ফিলিপাইনের সিনেটে এখন তদন্ত চলছে। এই তদন্তের কেন্দ্রে রয়েছে আরসিবিসি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, ফিলিপাইনের বর্তমান প্রেসিডেন্ট অ্যাকুইনো আগামী ৩০ জুন ক্ষমতা ছাড়বেন। সিনেটের তদন্ত কমিটি আশা করছে, তার পদত্যাগের আগেই ‘উদ্ধারযোগ্য’ সব টাকা ফেরত দেওয়া যাবে।