মুদ্রণ


বিডিনিউজডেস্ক.কম | তারিখঃ ২৬.০৯.২০১৫ 

কবি দীনেশ দাশ এক আবর্তসংকুল সময়খণ্ডের এক উল্লেখযোগ্য কবি। গত শতকের চল্লিশের দশকে বিশ্বব্যাপী নাজুক সময়ে কবি দীনেশ দাশ লিখেছিলেন-

 

'নতুন চাঁদের বাঁকা ফালিটি
তুমি বুঝি খুব ভালবাসতে?
চাঁদের শতক আজ নহে তো
এ যুগের চাঁদ হ’লো কাস্তে!'

মাত্র পনেরো বছর বয়সে মহাত্মা গান্ধীর লবণ আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ফলে সাময়িকভাবে লেখাপড়ায় ছেদ পড়লেও পরবর্তীতে ১৯৩০ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৩২-এ ইন্টারমিডিয়েট পাস করে বিপ্লবাত্মক স্বাধীনতা সংগ্রামে যোগ দেন। ১৯৩৩ সালে বিএ ক্লাসে ভর্তি হলেও সেই বিপ্লবী আন্দোলন ও সাহিত্য চর্চার জন্য গ্র্যাজুয়েশন শেষ করতে পারেননি। ১৯৩৬ সালে বামপন্থি মতবাদে আকৃষ্ট হয়ে মার্ক্স, এঙ্গেলস, রালফ ফক্সের রচনা পাঠ করে এক নতুন ভাবধারায় উদ্বুদ্ধ হন। এই চিন্তামানসই তার কবিতাকে বিশেষভাবে প্রভাবিত করেছে। ১৯৩৭ সালে প্রকাশিত হয় তার সাড়াজাগানো কবিতা ‘কাস্তে’। কবিতাটি আধুনিক বাংলা কবিতার মাইলফলক হিসেবে চিহ্নিত এবং এই একটি কবিতায় তিনি মেহনতী মানুষের মুখপাত্র হয়ে ওঠেন। ‘কাস্তে’ কবিতায় শুক্ল পক্ষের পঞ্চমীর বাঁকা চাঁদটাকে তিনি শ্রমজীবী কৃষকের ফসল কাটার ক্ষুরধার অস্ত্র কাস্তের সঙ্গে তুলনা করে খেটে খাওয়া মানুষের সংগ্রামের হাতিয়ার করে তোলেন।