মুদ্রণ

বাড়ি বাড়ি না গিয়েই রাজধানীতে ভোটার নিবন্ধন শুরু

জাতীয় ডেস্ক | তারিখঃ ৩০.০৯.২০১৫

বাড়ি বাড়ি না গিয়েই রাজধানীতে ভোটারের তথ্য নিবন্ধন কার্যক্রম বুধবার শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
বাড়ি বাড়ি গিয়ে নতুন ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করার জন্য আইন থাকলেও তা মানেননি মাঠপর্যায়ের তথ্যসংগ্রহকারীরা। রাজধানীর বেশির ভাগ এলাকায় ভোটার যোগ্য নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করা হয়নি। সংশ্লিষ্ট থানা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসারদের কাছে অভিযোগ করেও কোনো সুফল পায়নি নাগরিকরা। নিরুপায় হয়ে কেউ কেউ আইনের আশ্রয় নেয়ার কথা ভাবছেন বলে জানা গেছে।এ বিষয়ে ইসি সচিবালয়ের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, তথ্য সংগ্রহকারীরা বাড়ি বাড়ি যান না এ অভিযোগ যেমন আছে তেমনি-বাসা বাড়িতে তথ্য সংগ্রহকারীদের প্রবেশেও বিধি নিষেধের তথ্য রয়েছে। কোনো তথ্য সংগ্রহকারীর বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগ পেলে তাত্ক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যেসব নাগরিক তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রমের সময় ভোটার হতে পারেননি, তারা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে নিবন্ধন কেন্দ্রে গিয়ে ভোটার হতে পারবেন। ২০১৪ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদে ভোটার হওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের সংশ্লিষ্ট অফিসে ধরনা দিয়েও ভোটার হতে পারেননি ধানমন্ডির ৮/এ খ, রোড নং ১৪ (নতুন) বাসাতি ক্যাস্টেলর ফ্লাট সি-৯-এর একজন বাসিন্দা।
একইভাবে গত ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলা ভোটারের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রমও ভোটার হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ঠ অফিসে যোগাযোগ করেও কোনো তথ্য সংগ্রহকারী যাননি সংশ্লিষ্ট বাসাতে। পরে ভুক্তভোগী ওই নাগরিক নির্বাচন কমিশনকে উকিল নোটিস পাঠানোর চিন্তা-ভাবনা করছেন। এ বিষয়ে ধানমন্ডি থানা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ওই বাসাতে তথ্য সংগ্রকারী যাওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। নিবন্ধন কার্যক্রমের মধ্যে ভোটার হওয়া যাবে। তবে যে তথ্য সংগ্রহকারী বা সুপারভাইজার নির্দেশ পালনে অবহেলার পরিচয় দিয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ শুধু ওই বাসাতে নয় নগরীর কল্যাণপুরের ১নং রোডের সুরক্ষা ভবনের একাধিক ভোটার যোগ্য নাগরিক ভোটার হওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন।
এ রকমভাবে রাজধানীর প্রায় বেশির ভাগ এলাকায় যায়নি তথ্য সংগ্রহকারীরা। এরই মধ্যে রাজধানীর গুলশান, বনানী, তেজঁগাও, মতিঝিল, মিরপুর, শ্যামলী, পুরান ঢাকা ও আজিমপুরসহ বেশকিছু এলাকার ভোটার যোগ্যদের তথ্য সংগ্রহ না করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বুধবার থেকে আগামী ২০ অক্টোবর পর্যন্ত এ নিবন্ধন কার্যক্রম চলবে। এ জন্য ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে নিবন্ধন কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে।