Print

রমজানকে কেন্দ্র করে বেড়েছে রসুন-মুরগির

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১৩.০৫.২০১৬

রমজান মাসকে সামনে রেখে প্রায় প্রতিটি ভোগ্য পণ্যের দাম বাড়ছে রাজধানীর বাজারে।

তবে এ সপ্তাহে রসুন (দেশি) ও ব্রয়লার মুরগির দাম অন্য নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের তুলনায় কিছুটা বেশি বেড়েছে।শুক্রবার (১৩ মে) রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতারা সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া যায়। তবে গত সপ্তাহে বৃদ্ধি পাওয়া দামেই বিক্রি হচ্ছে অন্য সব পণ্য।
আমদানির অজুহাত দেখিয়ে এ সপ্তাহেও কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে বলে ক্রেতারা অভিযোগ করছেন। তারা বলছেন, পণ্যের আমদানি ঠিকঠাক থাকলেও দাম ঠিক রাখা হচ্ছে না।
কাস্টমস কর্মকর্তাদের জন্য দেশের বাজার অস্থির হয়ে থাকে বলে অভিযোগ করেন কারওয়ান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ীরা।
আমদানিকারক কোম্পানিগুলো যদি পণ্য পাইকারি বাজারে নিজেদের দায়িত্বে পৌঁছে দেয়, তাহলে প্রতিটি পণ্যের দাম বর্তমান দামের থেকে অনেক কমে বিক্রি করা যেতো, এমন দাবি বিক্রেতাদের। তবে এমন কথা মানতে নারাজ ক্রেতারা। তারা বলেন, বাজার ব্যবস্থাপনার জন্য বাড়তি দামেই কিনতে হয়। পাইকারি বাজারে এক টাকা দাম বাড়লে, খুচরা বাজারে বেড়ে যায় দশ টাকা।
এ সপ্তাহে রাজধানীর বাজারে ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি ১৭৫ থেকে ১৮০ টাকা, লেয়ার ১৯০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। আকারভেদে দেশি মুরগি কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকা। পাকিস্তানি মুরগির বিক্রি হচ্ছে প্রতি পিস ২৫০ টাকা থেকে ২৬০ টাকা।
কয়েক সপ্তাহ ধরে বেড়ে যাওয়া দামেই বাজারভেদে মসুর ডাল (দেশি) ১৭৫ টাকা, আমদানি ডাল ১৪৫ টাকা ও ক্যাঙ্গারু ১৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।
গত সপ্তাহের অপরিবর্তিত দামে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজ ৩৮ থেকে ৪০ টাকায়। এ সপ্তাহে কেজিপ্রতি আলু বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২২ টাকায়। বৃদ্ধি পাওয়া দামে প্রতি কেজি রসুন (আমদানি) বিক্রি হচ্ছে ২১০ থেকে ২২০ টাকা। আর গত সপ্তাহের থেকে দশ টাকা বেশিতে এ সপ্তাহে দেশি রসুন ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
গত সপ্তাহের থেকে হালিতে দুই টাকা দাম বেড়েছে ফার্মের ডিমের। ফার্মের মুরগির ডিমের হালি ৩৪ টাকা ও ডজন ১০০ টাকা। হাঁসের ডিমের হালি ৩৪ টাকা ও ডজন ১০২ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের হালি ৫০ টাকা ও ডজন ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে, গত সপ্তাহে বৃদ্ধি পাওয়া দামেই এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে সবজি। প্রতি কেজি শিম ৪৫ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, সব ধরনের শাক ২০ থেকে ৩০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া (ফালি) ৩০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, কাঁচামরিচ ১০০ টাকা, ধনেপাতা ১২০ টাকা, পেঁপে ৪০ টাকা, শসা জাতভেদে ২৫ থেকে ৪০ টাকা, টমেটো ও করলা ৫০ থেকে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে খাসির মাংস। এ সপ্তাহে ২০ টাকা দাম কমে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকায়। আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকা কেজি।
অপরদিকে, রাজধানীর বাজারে মাছের চালান আসতে শুরু করেছে। তবুও আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে রুই মাছ (ছোট) ২৬০ টাকা, রুই (বড়) ৩২০ টাকা কেজি। ছোট কাতলা ৩০০ টাকা ও বড় ৩৫০ টাকা কেজি। চিংড়ি (ছোট) ৫০০ টাকা কেজি। তেলাপিয়া ২২০ থেকে ২৪০ টাকা কেজি।