Print

বিডিনিউজডেস্ক.কম
সম্পাদক
অবরোধ-হরতাল শেষ না হতেই পুনরায় বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট গতকাল রবিবার থেকে ৭২ ঘন্টা হরতাল ডেকেছে। গত শুক্রবার বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমদ এক বিবৃতিতে জোটের পক্ষ থেকে এই ঘোষনা দেন।

বিরোধী দলের দাবির পক্ষে যতই যুক্তি থাকুক না কেন জবরদস্তিমূলক হরতাল-অবরোধের কোন যুক্তি নেই।
৫ জানুয়ারী থেকে এ পর্যন্ত চোরাগুপ্তা, পেট্রোল বোমার আঘাতে মানুষ পুড়িয়ে মারার নৃসংসতা, অর্থনৈতিক অবস্থার বেহাল দশা, শতাধিক লোকের জীবনহানি, এবং জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। এসএসসি পরীক্ষা নিতে হচ্ছে শুক্রবার, শনিবার। আবার ১ এপ্রিল থেকে এইচ এস সি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা, এর নিশ্চয়তা কতটুকু আছে তার নিশ্চয়তা কে দিবে? বিরোধী দল যদি মনে করে যে নাশকতা সন্ত্রাসের উপর ভিত্তি করেই আন্দোলনে জয়ী হওয়া সম্ভব, সেটা ভুল ধারনা। বিরোধী দলকে বুঝতে হবে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড আন্দোলন নয়। অন্যদিকে সরকারী দল সন্ত্রাসের কাছে মাথা নত না করেও চলমান সমস্যার যে রাজনৈতিক দিক রয়েছে তাকে স্বীকার করতে হবে।
যুক্তরাষ্ট্র সহযোগিতায় প্রস্তুত থাকলেও অভ্যন্তরীন সংকট নিরসনে নিজেদের ভুমিকা রাখতে হবে। দক্ষিন ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়াল বলেছেন সহিংসতা পরিহার করা, অংশগ্রহন করা, রাজনৈতিক প্রক্রিয়া সৃষ্টি ও শান্তিপূর্ন রাজনৈতিক বিরোধিতার সুযোগ দেয়া সমান গুরুত্ব। তিনি আরো বলেন সব দলেরই সহিংসতা বাদ দেয়া উচিত। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এরং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকে তিনি বলেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর সহিংসপন্থা গ্রহনের কোন সুযোগ নেই। তিনি আরো বলেন, সকল রাজনৈতিক দল, তথ্য মাধ্যম ও সুসীল সমাজ যাতে রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারে এবং তাদের মৌলিক অধিকার রক্ষার দায়িত্ব সরকারের। আমরা আশা করব যাতে দলমত নির্বিশেষে দেশের স্বার্থকে সামনে রেখে সকল সহিংসতা ভুলে সকলেরই একই লক্ষ হওয়া উচিত, দেশে দ্রুত শান্তিপূর্ন পরিবেশ ফিরিয়ে আনা।