আজ শনিবার, ২২ জুলাই, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** বনানীতে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাতসহ পাঁচজনের বিচার শুরু * ভিয়েতনাম থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন চালের প্রথম চালান নিয়ে বন্দরে ভিড়েছে জাহাজ * লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে সংঘর্ষে চালক নিহত * তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা * সীতাকুণ্ডে নয় শিশুর মৃত্যু ও ৪৬ জনের অসুস্থতার কারণ এখনও শনাক্ত করা যায়নি * চিকিৎসকরা বলছেন, ত্রিপুরা পাড়ার অসুস্থ শিশুরা মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে * ৫৬ ইউনিয়ন পরিষদ এবং একটি করে পৌরসভা ও জেলা পরিষদের কয়েকটি ওয়ার্ডে ভোট চলছে * চট্টগ্রামে ইয়াবা ও চোলাই মদসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর * দুর্নীতির দায়ে ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলার সাড়ে নয় বছরের কারাদণ্ড

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

সন্ত্রাস জঙ্গিবাদের নিরসন কবে?

বিডিনিউজডেস্ক
০৬.০৫.২০১৬

নাজমা বেবী || সহ-সম্পাদক

 

প্রতিদিন পত্রিকা খুললেই শিরনামে দেখা যায়ে নিরীহ মানুষের উপর খুন,ছিনতাই,রাহাজানির মত ধংসাত্তক আক্রমণ চলছে।কি কারনে এই নিরীহ মানুষগুলোকে প্রাণ দিতে হচ্ছে,এর প্রকৃত কারন কোথায়,থেকেই যাচ্ছে এ প্রশ্নের উত্তরগুলো।এমন মুত্যু থেকে মানুষ কবে মুক্তি পাবে।

প্রশিক্ষন প্রাপ্ত জঙ্গি সন্ত্রাসিরা জীবনকে বাজি রেখে নতুন নতুন কলাকৌশল নিয়ে কিলিং মিশন বাস্তবায়নে নামেছে এবং একের পর এক এই কিলিং মিশনকে টার্গেট করে তা সফলভাবে বাস্তবায়ন করার পর সেই খুনিরা কেনইবা ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যেতে পারছে।শেষ পর্যন্ত এই "কিলিং মিশন" হত্যাটি কি গন হত্যায় রূপ নিবে?এমন প্রশ্ন সমাজের কাছে থেকেই যাচ্ছে।

এমনটি যদি চলতে থাকে তাহলে পরিস্থীতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যাবে।তখন দেশ তার নিরাপদ আশ্রয় হারিয়ে ফেলবে।সন্ত্রাসিরা যেমন জীবনকে বাজি রেখে হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে,ঠিক তেমনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কী এমন মৃত্যু ঝুকি নিতে চাইবে ?উত্তরে র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেছেন যে, তারা নিরলস ভাবে কাজ করছেন এবং দু’একটি ঘটনা ছাড়া প্রতিটি হত্যাকান্ডের তদন্ত গুরুত্বের সাথে দেখছেন।তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন যে, এসব খুনি সন্ত্রাসী নির্মূল করতে পুলিশ এবং র‍্যাব বাহিনীই পুরোপুরি সক্ষম।মানুষ চায় শান্তি, আর এই শান্তির জন্য দৃঢ় পদক্ষেপের প্রয়োজন, শুধু সরকার নয়, দেশের বিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গের সাথে প্রতিটি স্তরের মানুষের সহযোগিতার প্রয়োজন।

তাহলেই সন্ত্রাসীদের হাত ভেঙ্গে দেওয়া যাবে। দেশ ও দেশের মানুষকে বাঁচাতে হলে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সকলকেই রুখে দাড়াতে হবে।