Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Star Cure

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ২৯.০৯.২০১৯

সপ্তম অধ্যায়

বাংলাদেশ : রাষ্ট্র ও সরকার ব্যবস্থা

সৃজনশীল প্রশ্ন

‘ক’ হচ্ছে সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। বিভাগটি সরকারের আয়-ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করে, দেশের জাতীয় তহবিলের অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে।

ক) সিটি করপোরেশনের প্রধানকে কী বলে?

খ) স্থানীয় সরকার কাকে বলে? ব্যাখ্যা করো।

গ) উদ্দীপকে সরকারের কোন বিভাগকে ইঙ্গিত করা হয়েছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ) দেশকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার ক্ষেত্রে উক্ত বিভাগটি কী যথেষ্ট ভূমিকা পালন করতে পারে? তোমার উত্তরের স্বপক্ষে যুক্তি দাও।

 

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর

ক) সিটি করপোরেশনের প্রধানকে মেয়র বলে।

 

খ) স্থানীয় সরকার হলো স্থানীয় পর্যায়ে শাসন ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার ব্যবস্থা।

স্থানীয় সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধানের লক্ষ্যেই মূলত স্থানীয় সরকার কাজ করে। বর্তমানে রাষ্ট্রের আয়তন বড় ও লোকসংখ্যা বেশি হওয়ায় কেন্দ্রে বসে সরকারের পক্ষে দেশের সব অঞ্চলের সব সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই স্থানীয় পর্যায়ের সমস্যার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য এ ধরনের শাসনব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। এতে কেন্দ ীয় সরকারের ওপর চাপ কমে, স্থানীয় সমস্যার সমাধানও সহজ হয়। এটি বাংলাদেশের শাসনব্যবস্থার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

গ) উদ্দীপকে সরকারের আইন বিভাগকে ইঙ্গিত করা হয়েছে।

সরকার রাষ্ট্রের মূল চালিকাশক্তি। সরকারের মাধ্যমেই রাষ্ট্র যাবতীয় কাজ সম্পাদন করে। রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য সরকার বিভিন্ন কাজ করে। সব কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য সরকারের রয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। সরকারের তিনটি বিভাগ রয়েছে, এগুলো হলো—আইন বিভাগ, শাসন বিভাগ ও বিচার বিভাগ।

 

উদ্দীপকে ‘ক’ দ্বারা একটি বিভাগকে ইঙ্গিত করা হয়েছে, যেটি সরকারের আয়-ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করে এবং জাতীয় তহবিলের অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। এই কাজগুলো আইন বিভাগকে ইঙ্গিত করে। বাংলাদেশের আইনসভা জাতীয় সংসদ। এটি এক কক্ষবিশিষ্ট। মোট ৩৫০ জন সদস্য নিয়ে বিভাগটি গঠিত। এর মধ্যে ৩০০ জন সদস্য ৩০০টি নির্বাচনী এলাকা থেকে নাগরিকের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন এবং বাকি ৫০টি আসন মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত। তাঁরা ৩০০ জন নির্বাচিত সদস্যদের দ্বারা পরোক্ষভাবে নির্বাচিত হন। একজন স্পিকার ও একজন ডেপুটি স্পিকার জাতীয় সংসদের অধিবেশনসংক্রান্ত সব কার্যক্রম পরিচালনা করেন। উদ্দীপকে উল্লিখিত কাজগুলো ছাড়াও আইন বিভাগ রাষ্ট্রের সাধারণ আইন তৈরি ও পরিবর্তন করে, দেশের জনমতকে প্রকাশ করে, জাতীয় বাজেট অনুমোদন ও কর ধার্য করে, সংবিধান প্রণয়ন ও সংশোধন করে এমনটি রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ উত্থাপিত হলে তা বিচার-বিবেচনা করে।

ঘ) দেশকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার ক্ষেত্রে উক্ত বিভাগটি অর্থাৎ আইন বিভাগটি যথেষ্ট ভূমিকা পালন করতে পারে না, কেননা সরকার বিভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকে, যা শুধু আইন বিভাগ দ্বারা সম্পাদন করা সম্ভব না। আর এ কারণেই সরকারের তিনটি বিভাগ রয়েছে।

সরকার রাষ্ট্রের মূল চালিকাশক্তি। সরকারের মাধ্যমেই রাষ্ট্র যাবতীয় কাজ সম্পাদন করে। রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য সরকার বিভিন্ন কাজ করে। সব কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য সরকারের রয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। সরকারের তিনটি বিভাগ রয়েছে, এগুলো হলো—আইন বিভাগ, শাসন বিভাগ ও বিচার বিভাগ। প্রতিটি বিভাগের রয়েছে আলাদা আলাদা কাজ।

উদ্দীপকে ‘ক’ দ্বারা একটি বিভাগকে ইঙ্গিত করা হয়েছে, যেটি সরকারের আয়-ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করে এবং জাতীয় তহবিলের অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। এই কাজগুলো আইন বিভাগকে ইঙ্গিত করে। বাংলাদেশের আইনসভা জাতীয় সংসদ। বাংলাদেশ সরকারের কাজগুলো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য আরো দুটি বিভাগ রয়েছে—শাসন বিভাগ ও বিচার বিভাগ।

আইন বিভাগ দেশের জন্য প্রয়োজনীয় আইন তৈরি করে, পরিবর্তন করে এবং পুরনো আইন সংশোধন করে, জাতীয় বাজেট অনুমোদন করে, কর ধার্য করাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে। শাসন বিভাগ রাষ্ট্রের শাসনসংক্রান্ত কার্যাবলি পরিচালনা করে, আইন বিভাগ কর্তৃক প্রণীত আইন বাস্তবায়ন করে এবং সে অনুযায়ী দেশ পরিচালনা করে, দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করে। ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য সংবিধান ও আইন অনুযায়ী বিচারকাজ পরিচালনা করে থাকে বিচার বিভাগ। বাংলাদেশের বিভিন্ন বিচারালয়ের বিচারকদের নিয়ে এ বিভাগ গঠিত। দুষ্টের দমন, অপরাধীর শাস্তি বিধান ও ন্যায় প্রতিষ্ঠা করে নাগরিক জীবনকে সুন্দর ও সহজ করে তোলে বিচার বিভাগ। দেশের সব কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করার ক্ষেত্রে তিনটি বিভাগ অর্থাৎ আইন বিভাগ, শাসন বিভাগ ও বিচার বিভাগের প্রয়োজন কোনো একটি বিভাগ দ্বারা তা সম্ভব না।