আজ বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় * সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১৩.০৯.২০১৭

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) অনার্স প্রথম বর্ষ ভর্তি সংক্রান্ত বিষয়ে হটলাইনে সেবা না পাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একাধিক ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক এ অভিযোগ করেছেন।

তাদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইটে দেয়া মোবাইল নম্বরে ফোন দিয়ে তারা কোনো ধরনের সেবা পাননি। হটলাইন নম্বরে ফোন দিলে হয়তো কখনো বন্ধ, কখনো ফোন কেটে দিচ্ছে কিংবা ব্যস্ত দেখাচ্ছে।

‘ই’ ইউনিটের এক পরীক্ষার্থী কল্যাণপুর থেকে মঙ্গলবার সকালে জবি ক্যাম্পাসে গিয়ে তার সমস্যার সমাধান করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, অমার যে সমস্যা ছিল তা ফোন দিলেই সমাধান হয়ে যেতো। কিন্তু অনলাইনে যে হটলাইনের নম্বর দেয়া আছে সেটাতে গত দুই দিন ধরে ফোন দিলেও ফোন রিসিভ হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে আজ আমাকে আসতে হয়েছে।

রংপুর থেকে আসা ‘সি’ ইউনিটের একজন পরীক্ষার্থীর বাবা বায়জীদ আলম জানান, তার ছেলের প্রবেশপত্র আসছিল না। ‘এপ্লিকেশন ইনকমপ্লিট’ দেখাচ্ছিল। কেন এমনটি দেখাচ্ছিল তা জানার জন্য হটলাইনের নম্বরে অনেকবার ফোন দিলেও কোনো রেসপন্স পাওয়া যায়নি। তাই আজ নিজেই এসেছেন।

সমস্যার সমাধান হলো কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, রেজিস্ট্রার অফিস থেকে প্রথমে সহকারী রেজিস্ট্রার মশিরুল ইসলামের কাছে যাই। পরে রেজিস্ট্রার অফিসের সেকশন অফিসার হেদায়েতুল্লাহ তুর্কির রুমে গেলেও কোনো সমাধান হয়নি। যিনি এটা দেখবেন, তিনি নাকি সন্ধ্যায় আসবেন। তাই সন্ধ্যার পর যোগাযোগ করতে বলেছেন।  আরো কয়েকজন পরীক্ষার্থীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ভর্তি সংক্রান্ত কাজে স্ব-শরীরে এসেও তারা রেজিস্ট্রার অফিস থেকে আশানুরূপ সেবা পাচ্ছেন না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী রেজিস্ট্রার মশিরুল ইসলাম বলেন, আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি সেবা দেয়ার। হটলাইনের বিষয়ে তিনি বলেন, হটলাইনে সবসময় সেবা দেয়া সম্ভব না। হটলাইন নম্বর বন্ধ থাকা, ফোন কেটে দেয়া বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি রেজিস্ট্রারের সাথে কথা বলতে বলেন। 

রেজিস্ট্রার অফিসের সেকশন অফিসার হেদায়েতুল্লাহ তুর্কি বলেন, আমাদের হটলাইনে সেবা পাচ্ছে না এটা ভুল কথা। অনেকে চেষ্টা করছে কথা বলার জন্য, তাই হয়তো এ সমস্যা হচ্ছে। ফোন বন্ধ থাকা কিংবা কেটে দেয়া বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের তো রিসিভ করারই সময় নাই, কাটব কখন। সেবার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা নিজেরাই পরীক্ষার্থীদের ডেকে এনে তাদের ভুল সংশোধন করছি। এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জামানের মুঠোফোনে বারবার ফোন দিলেও তাকে পাওয়া যায়নি।