মুদ্রণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | তারিখঃ ২৯.১০.২০১৯

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমানকে পাকিস্তানের আকাশ ব্যবহারের অনুমতি দেয়নি পাকিস্তান সরকার।

নরেন্দ্র মোদির সৌদি যাত্রার জন্য পাকিস্তানের ওপর দিয়ে বিমান ওড়ানোর অনুমতি চেয়েছিল ভারত। নিয়ম মেনেই আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু, পাকিস্তান সেই অনুরোধ রাখেনি। এর আগেও একাধিকবার একই আচরণ করেছে পাকিস্তান সরকার। তাই একপ্রকার বাধ্য হয়েই আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল সংস্থার দ্বারস্থ হলো নয়াদিল্লি। একপ্রকার বাধ্য হয়েই ওই সংস্থায় নালিশ জানাল ভারত। কেন পাকিস্তান বারবার আন্তর্জাতিক নিয়ম ভঙ্গ করছে, জানতে চাওয়া হয়েছে ইসলামাবাদের কাছে।

নিয়ম অনুযায়ী কোনও দেশের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীসহ ভিআইপিদের বিশেষ ক্ষেত্রে বিমান ব্যবহারে বাধা দিতে পারে না কোনও দেশই। সেই অনুযায়ী মোদির বিমান ওড়ার ক্ষেত্রে পাকিস্তান বাধা দিতে পারে না। কিন্তু, ইসলামাবাদ বারবার এই নিয়ম লঙ্ঘন করছে। 

এদিকে, গত ২০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পাকিস্তানের আকাশসীমা ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন। তখন অনুমতি দেওয়া হয়নি। এর আগে, বিশকেক যাওয়ার সময়ও মোদির বিমান উড়তে দেয়নি পাকিস্তান। শুধু তাই নয়, ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের বিমানও উড়তে দেয়নি পাকিস্তান। ইউরোপ সফরে যাওয়ার জন্য পাক আকাশসীমা ব্যবহারের অনুমতি চেয়েছিলেন কোবিন্দ।

পাকিস্তান বারবার নিয়ম ভঙ্গ করায় একপ্রকার বাধ্য হয়ে, আন্তর্জাতিক অসামরিক বিমান পরিবহণ সংগঠনের দ্বারস্থ হয়ে ভারত। এই সংস্থায় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে নালিশ করেছে নয়াদিল্লি। পাকিস্তানের শাস্তির দাবি করেছে ভারত। 

নয়াদিল্লি জানিয়েছে, আগামী দিনেও এ ধরনের অনুরোধ জানাবে ভারত। কিন্তু বারবার কেন আন্তর্জাতিক নিয়ম লঙ্ঘন করছে? তাঁর উত্তর দিতে হবে নয়াদিল্লিকে।

প্রসঙ্গত, বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর পাকিস্তান ভারতের জন্য নিজেদের আকাশসীমা পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এরপর আংশিকভাবে তা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও ৩৭০ ধারা বাতিলের পর আবার পিছু হটে পাকিস্তান। এর ফলে, সেই সিদ্ধান্ত আর কার্যকর হয়নি।