আজ শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** ময়মনসিংহে সুটকেসের ভেতর যুবকের লাশ * ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষা স্থগিত * দিনাজপুরে বজ্রপাতে নিহত ৬ * দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে 'সুপার ম্যালেরিয়া' * রিয়ালের পথের ইতি টানতে চান বেনজেমা * মধ্যবাড্ডায় অগ্নিকাণ্ডে মায়ের মৃত্যু, ২ সন্তান দগ্ধ * পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই: বাড়ছে ক্ষোভ, ঝিমিয়ে পড়া

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | তারিখঃ ১০.০৯.২০১৭

উত্তর কোরিয়ার প্রোপাগান্ডামূলক দু’টি চ্যানেল বন্ধ করেছে ইউটিউব৷

ইউটিউবের সামাজিক নীতি ভঙ্গ করার অভিযোগে এগুলো বন্ধ করা হয়েছে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানটি। রবিবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম দ্যা গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্ধ করে দেয়া চ্যানেল দু’টি হলো- স্টিমেকোরিয়াস ও উরিমিজোককিরি। এগুলো উত্তর কোরিয়ায় বেশ জনপ্রিয়। স্টিমেকোরিয়াসের ২০ হাজারের বেশি এবং উরিমিজোককিরির ১৮ হাজারের বেশি সাবস্ক্রাইবার ছিল। চ্যানেল দু’টিতে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত নিউজ ক্লিপের ভিডিও পোস্ট করা হতো। মূলত এতে নানা ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ, ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার ভিডিও শেয়ার করত পিয়ংইয়ং।

গত মাসে উরিমিজোককিরি চ্যানেলটিতে দেখানো হয়েছিল, উত্তর কোরিয়ায় পাঁচ দশক ধরে জীবিত অবস্থায় থাকার পরে সাবেক মার্কিন সেনা জেমস জোসেফ ডার্সোনকের মৃত্যু হয়েছে। তবে মৃত্যুর আগে তিনি প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের বশ্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন। আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, এই চ্যানেলের মাধ্যমে আসলে উত্তর কোরিয়ার সামরিক শক্তির প্রদর্শন করত স্বৈরাচারী প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। উত্তর কোরিয়ার বিভিন্ন সামরিক সম্ভার দেখানো হত। এক কথায় কিমের নীতি আন্তর্জাতিক বিশ্বে ছড়িয়ে দিত এই ইউটিউব চ্যানেল দু’টি। এদিকে, শুক্রবার চ্যানেল দু’টি বন্ধ করার ঘোষণা দিলেও এ বিষয়ে বিস্তারিত কোনো বক্তব্য প্রকাশ করেনি ইউটিউব কর্তৃপক্ষ। কতদিন পর্যন্ত চ্যানেলটি বন্ধ থাকবে তাও জানানো হয়নি।

জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা উপক্ষো করে একের পর এক ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ও পরমাণু বোমার পরীক্ষা চালিয়ে আসছে উত্তর কোরিয়া। গত রবিবার একটি হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটি। ভূগর্ভে এই বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল। বিশ্লেষকদের ধারণা, উত্তর কোরিয়ার সর্বশেষ বোমার বিস্ফোরণ ক্ষমতা ১০৮ কিলোটন; যা জাপানের হিরোশিমায় যুক্তরাষ্ট্রের ফেলা বোমার চেয়ে ৭.৮ গুণ বেশি শক্তিশালী।

 

                                                                                                                                                                                                                 সূত্র: দ্যা গার্ডিয়ান