আজ রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** ময়মনসিংহে সুটকেসের ভেতর যুবকের লাশ * ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষা স্থগিত * দিনাজপুরে বজ্রপাতে নিহত ৬ * দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে 'সুপার ম্যালেরিয়া' * রিয়ালের পথের ইতি টানতে চান বেনজেমা * মধ্যবাড্ডায় অগ্নিকাণ্ডে মায়ের মৃত্যু, ২ সন্তান দগ্ধ * পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই: বাড়ছে ক্ষোভ, ঝিমিয়ে পড়া

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | তারিখঃ ১৪.০৯.২০১৭

দ্রুতগামী বুলেট ট্রেনের ভিত্তিপ্রস্তর করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে।

বৃহস্পতিবার আমেদাবাদের সবরমতী স্টেশনে এই প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন এই দুই রাষ্ট্র নেতা।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন মাহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশ, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি প্রমুখ।

নির্মাণকারী সংস্থার দাবি, ৫০৮ কিলোমিটার দীর্ঘ মুম্বাই-আমেদাবাদ পর্যন্ত বুলেট ট্রেন চালূ শুরু হয়ে যাবে আগামী পাঁচ বছর অর্থাৎ ২০২২ সালের মধ্যেই। ১ লাখ ১০ হাজার কোটি রুপির এই প্রকল্পে ৮১ শতাংশ বিনিয়োগ আসছে জাপান থেকে।

তবে আর্থিক সহায়তাই নয়, প্রযুক্তিগত সহযোগিতাও করছে জাপান। প্রায় শতাধিক জাপানি প্রকৌশলী এই কাজে সহায়তা করবে। এই ট্রেন চালু হলে ৮ ঘন্টার পরিবর্তে মাত্র ২ থেকে ৩ ঘন্টার মধ্যে আমেদাবাদ থেকে মুম্বাইয়ে পৌঁছে যাওয়া যাবে। ঘন্টায় ৩২০ থেকে ৩৫০ কিলোমিটার বেগে ছুটবে এই বুলেট।

এই রেলপথের যাত্রার মধ্যে ৬ শতাংশ থাকবে টানেল পথ বাকি থাকবে মাটির ওপর। মোট ১২ টি স্টেশন থাকছে এই রেলপথে। বুলেটের ভাড়া হতে পারে ২৭০০ থেকে ৩ হাজার রুপির মতো। আপাতত ট্রেনটিতে ১০ টি বগি থাকবে বলে জানা গেছে। প্রতিদিন ৩৫ হাজার যাত্রীর যাতায়াতের সুযোগ থাকবে বলেও জানা গেছে।

 

এদিন বুলেট ট্রেনের ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে মোদি বলেন, হাই স্পিড কানেকটিভিটির সাথে জড়িয়ে রয়েছে দেশের উন্নয়ন, সেই কারণে বুলেট ট্রেনের মতো হাই স্পিড কানেকটিভিটির ওপর কেন্দ্র জোর দিয়েছে।

তিনি বলেন, কানেকটিভিটি ছাড়িয়ে হাই স্পিড কানেকটিভিটির ওপর জোর দেয়া হচ্ছে। হাই স্পিড কানেকটিভিটির মধ্যে দিয়ে একদিকে গতি বাড়বে অন্যদিকে দূরত্ব কমবে পাশাপাশি আর্থিক উন্নতির নতুন দিগন্ত খুলবে।

তিনি আরও বলেন, কোন দেশের আর্থিক প্রবৃদ্ধি তখনই হবে যখন উৎপাদন হবে। আমাদের লক্ষ্যই হল হাই স্পিড কানেকটিভিটর মাধ্যমে আরও বেশি উৎপাদন।

বন্ধু জাপানকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, বুলেটের গতি ভারতের অগ্রগতি আনবে। আর্থিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসবে। মোদির অভিমত বুলেট ট্রেন পরিবেশ বান্ধব। তাছাড়া বিমানের থেকেও আগে পৌঁছোনো যাবে এবং মুম্বাই-আমেদাবাদ জাতীয় সড়কে যানজট কমবে।

এদিকে বক্তব্যের শুরুতেই এদিন ‘নমস্কার’ বলে সকলকে সম্বোধন করেন জাপানি প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং শেষে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন তিনি।

প্রকল্পের শিলন্যাস করে তিনি বলেন, ভারতকে প্রগতির পথে এগিয়ে নিতে যেতে পেরে জাপান নিজের ধন্য মনে করছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ভারত ও জাপানের মধ্যে বন্ধন আরও মজবুদ হবে। প্রকল্পে কোনো বাধা আসবে না বলেও এদিন আশ্বাস দিয়েছেন আবে।