মুদ্রণ

পেশাজীবনে লক্ষ্য-উদ্দেশ্য খুঁজে পেতে...

লাইফস্টাইল ডেস্ক  | তারিখঃ ০৩.০৯.২০১৫ 

কর্মক্ষেত্রে মাঝেমধ্যেই হতাশা চলে আসে।

লক্ষ্য অর্জনে পথের দিশা পাওয়া দুষ্কর হয়ে ওঠে। এ সময় নৈরাশ্য ভর করে। অফিসে প্রায় সময় এমন শোচনীয় অবস্থার শিকার হলে খুব দ্রুত ভিন্ন পথ খুঁজে নেওয়া জরুরি হয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, পরিত্রাণ পেতে কিছু কর্ম-আদর্শ বা দৃষ্টিভঙ্গির সন্ধান জরুরি হয়ে পড়ে। খুব সহজ মনে হলেও এগুলো অতি শক্তিশালী উপাদান। পেশাজীবনের হতাশা, কষ্ট ও অসহায়ত্ব থেকে বাঁচতে তিনটি পদক্ষেপ নিন।
১. একটা গভীর শ্বাস
কাজের চাপে হয়তো এক চিন্তাই গ্রাস করে। মনে হয়, দুনিয়ার যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ কাজ দ্রুততার সঙ্গে করার দায়িত্ব একমাত্র আপনার। কিন্তু এই চিন্তা কি বাস্তবিক? পরবর্তী তিন ঘণ্টার মধ্যে কি আপনাকে প্রতিটা ই-মেইলের জবাব দিতেই হবে? উৎপাদনশীল মানুষজন সহজেই বুঝতে পারে, তাদের কখন একটা ব্রেক প্রয়োজন। তাই প্রচণ্ড চাপে থেকেও নির্দিষ্ট সময় পর পর একটা গভীর শ্বাস নিন। একটু জিরিয়ে নিন। সব দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যাবে।
২. পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুত
অনেক সময়ই মনে হয়, কী যেন একটা নেই। এতে দারুণ মানসিক চাপ সৃষ্টি হয়। আমরা এমন একটা সমাজে বাস করি যেখানে আরো বেশি অর্থ, বিত্ত, পোশাক এবং প্রভাব প্রয়োজন বলে অনুভূত হয়। যেখানে সব সময় বেশি বেশি দরকার, সেখানে প্রতিনিয়ত কিছু না কিছুর অভাব থেকেই যাবে। কর্মক্ষেত্রে কাজ কয়েক ভাগে ভাগ করে নেওয়ার বহু সুবিধা রয়েছে। তবে যারা নতুন শুরু করছে, তাদের জন্যে বেশি বিভক্তি স্ট্রেস আনতে পারে। চিন্তামুক্ত থাকতে নিজের চারপাশটা একটু গুছিয়ে নিন। কাজের টেবিলে বা চারপাশে কোন জিনিসটা প্রয়োজন তার পূর্ণাঙ্গ তালিকা করে নিন। বাড়তি যা রয়েছে এখনি সরিয়ে ফেলুন। আপনি যত জিনিসের মালিক হবেন, ঠিক তত জিনিস আপনার ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকবে। এ থেকে যতটা মুক্ত থাকা যায় ততই মঙ্গল।
৩. সেবামূলক কাজের সন্ধান
কোনো লক্ষ্য অর্জনে যখন আমরা কাজ করতে থাকি, তখন একটা চিন্তাই মাথায় ঘোরাফেরা করে। তা হলো সফলতার পথে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় চোখ-মুখ বুজে কেবল হাতের কাজ সারতে হবে। এর বিনিময়ে লাভজনক কিছু পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্ধবিশ্বাস রয়েছে আমাদের। সব সময় লাভজনক কাজে দৃষ্টি দেওয়ার চিন্তা বাদ দিন। এমন কিছু খুঁজে নিন যেখানে স্বেচ্ছাশ্রম দিতে প্রস্তুত আপনি। বিশেষ করে অন্যের নিঃস্বার্থ এবং নিঃশর্ত উপকার হবে এমন কাজের সন্ধান করুন।
--ফোর্বস অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার