Print

ভারত সীমান্তে শক্তি বাড়াচ্ছে চীন!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | তারিখঃ ১৫.০৫.২০১৬

ভারতের সীমান্তে চীন তার সামরিক বাহিনীর শক্তি বাড়াচ্ছে বলে পেন্টাগন দাবি করেছে।

তারা ভারতকে সতর্ক থাকারও পরামর্শ দিয়েছে।
এদিকে ভারতীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, তিব্বতের দায়িত্বে থাকা সেনা কম্যান্ডের ক্ষমতা এবং মর্যাদা বাড়ানো হয়েছে। সেখানেই শেষ নয়। চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম জানাল, ভবিষ্যতে কোনো যুদ্ধে অংশ নিতে হতে পারে বলেই তিবেট মিলিটারি কম্যান্ডের এই শক্তিবৃদ্ধি করা হল।
ঠিক কী ভাবে শক্তি বাড়ানো হচ্ছে চীনের টিবেট মিলিটারি কম্যান্ডের? এত দিন টিবেট মিলিটারি কম্যান্ড ছিল একটি প্রাদেশিক মিলিটারি কম্যান্ড, যার দায়িত্বে থাকতেন এক জন লেফটেন্যান্ট জেনারেল। এই প্রাদেশিক কম্যান্ডগুলিকে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির অংশ হিসেবে ধরা হয় না। ফলে পিপলস লিবারেশন আর্মির অন্তর্গত কম্যান্ডগুলির মতো উন্নত প্রশিক্ষণ, অত্যাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র এবং বিপুল সমর পরিকাঠামো এই প্রাদেশিক কম্যান্ডগুলির থাকে না। চিনা প্রেসিডেন্ট শি চিনফিং-এর নেতৃত্বাধীন সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, টিবেট মিলিটারি কম্যান্ড আর প্রাদেশিক বাহিনী হিসেবে কাজ করবে না। এই বাহিনীকে পিপলস লিবারেশন আর্মির স্থলবাহিনীর অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। এর ফলে বাহিনীর মর্যাদা বাড়ছে। লেফটেন্যান্ট জেনারেলের বদলে এক জন ফোর স্টার পর্যায়ের জেনারেল এ বার থেকে টিবেট মিলিটারি কম্যান্ডের দায়িত্বে থাকবেন। বাহিনীর প্রশিক্ষণ, অস্ত্রশস্ত্র ও পরিকাঠামো বদলানো হবে। আগের চেয়ে অনেক উন্নত হয়ে উঠবে টিবেট মিলিটারি কম্যান্ড।
চীনের সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদপত্র গ্লোবাল টাইমসে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদনটিতে লেখা হয়েছে, ভবিষ্যতে কোনও যুদ্ধে অংশ নিতে হতে পারে টিবেট মিলিটারি কম্যান্ডকে। সেই কারণেই শক্তি বাড়ানো হচ্ছে।
ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকায় বলা হয়েছে, তিব্বত চিরকালই চীনের জন্য স্পর্শকাতর এলাকা। তিব্বতকে ঘিরে ভারত-চীন সম্পর্কেও নানা টানাপড়েন এসেছে একাধিকবার। নির্বাসিত তিব্বত সরকারকে হিমাচল প্রদেশের ধর্মশালায় রাজনৈতিক আশ্রয় দিয়েছে ভারত। তিব্বতিদের স্বাধীনতার লড়াইয়ের প্রতিও ভারতের প্রচ্ছন্ন সমর্থন রয়েছ। অন্য দিকে চীন তিব্বতকে বার বার নিজেদের এলাকা বলে দাবি করেছে। সঙ্গে ভারতের অরুণাচল প্রদেশকেও দক্ষিণ তিব্বত নাম দিয়ে নিজেদের এলাকা বলে দাবি করেছে। লাদাখেও সীমান্ত চিহ্নিতকরণ নিয়ে সমস্যা রয়েছে ভারত-চীনের মধ্যে। কখনো চীনের টিবেট মিলিটারি কম্যান্ডের বিরুদ্ধে লাদাখে সীমান্ত লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছে ভারতের ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ (আইটিবিপি)। কখনো টিবেটান মিলিটারি কম্যান্ড দাবি করেছে ভারতের আইটিবিপি চীনা এলাকায় অনুপ্রবেশ করেছে।
তিব্বতের সীমান্তে এই সব সমস্যা এবং বিক্ষিপ্ত উত্তেজনা থাকলেও কখনোই সেখানে চীন-ভারত প্রকাশ্য সংঘর্ষে জড়ায়নি। বরং ভারতের অন্য অনেক সীমান্তের চেয়ে তিব্বত সীমান্ত শান্তিপূর্ণ। সেই তিব্বতের মিলিটারি কম্যান্ডকে ভবিষ্যতে যুদ্ধে অংশ নেওয়ার জন্য চিন হঠাৎ প্রস্তুত করছে কেন? তিব্বতের সীমান্তে যুদ্ধ মানে ভারত আর চিনের মধ্যেই যুদ্ধ। কারণ তিব্বত লাগোয়া দেশ বলতে ভারত, নেপাল ও ভুটান। নেপাল, ভুটানের মতো দেশ চিনের সঙ্গে যুদ্ধে জড়াবে, তেমন প্রশ্নই ওঠে না। অতএব তিব্বত সীমান্তে চিনের সঙ্গে সঙ্ঘাতে জড়াতে পারে এক মাত্র ভারত। তাই চিনের টিবেট মিলিটারি কম্যান্ড যখন ভবিষ্যতে যুদ্ধে অংশ নেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে, তখন যে প্রস্তুতি যে অবশ্যই ভারতের কথা মাথায় রেখে নেয়া হচ্ছে, সে ব্যাপারে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা একমত।
প্রশ্ন হল, চীন কেন যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে? চীন কী ভারত আক্রমণের প্রস্তুতি নিচ্ছে? নাকি ভারত অদূর ভবিষ্যতে আক্রমণ করতে পারে বলে ধরে নিয়ে পাল্টা প্রস্তুতি নিচ্ছে? প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, ভারত যে ভাবে মাউন্টেন স্ট্রাইক কোর তৈরি করে ক্ষিপ্র আক্রমণের জন্য বাহিনী প্রস্তুত করছে, তা চিনকে ভাবাচ্ছে। হিমালয়, কারাকোরাম, হিন্দুকুশ বা পামিরের যেকোনো দুর্গম পার্বত্য এলাকায় আচমকা হামলা চালিয়ে প্রতিপক্ষকে নাস্তানাবুদ করার জন্যই এই মাউন্টেন স্ট্রাইক কোর তৈরির পরিকল্পনা করেছে ভারত। তার সঙ্গে উত্তর-পূর্ব ভারতে রাজ্যগুলিতেও দ্রুত পরিকাঠামোর উন্নতি ঘটাচ্ছে ভারত সরকার। ভারতের তরফে এই প্রস্তুতিকে চীন অশনিসঙ্কেত হিসেবে দেখছে বলে মনে করছেন সমর বিশারদদের একাংশ। সেই কারণেই নাকি চীন টিবেট মিলিটারি কম্যান্ডের শক্তি এবং সক্ষমতা অবিলম্বে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞ তথা ভারতীয় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত অফিসার কর্নেল সৌমিত্র রায় বললেন, ‘‘চীন ভারতকে আক্রমণের প্রস্তুতি নিচ্ছে এমনটা ভাবা ঠিক নয়। চীন সব সময়ই চায় প্রতিবেশী দেশগুলির চেয়ে সামরিকভাবে অনেক বেশি শক্তিশালী হতে। ক্ষমতা দেখিয়ে প্রতিবেশীদের বশে রাখতে চায় বেইজিং। কিন্তু আগ বাড়িয়ে কোনো দেশকে আক্রমণ করার প্রবণতা চীন অনেক আগেই ছেড়ে দিয়েছে। ভারত শক্তি বাড়াচ্ছে দেখলে চিন চুপচাপ বসে থাকবে না। ভারত মাউন্টেন স্ট্রাইক কোর-এর মতো আক্রমণাত্মক বাহিনী তৈরি করলে চীনও যে পাল্টা প্রস্তুতি নেবে, তা স্বাভাবিক। তবে তা মূলত রক্ষণাত্মক ব্যবস্থা। একে চীনের আক্রমণাত্মক পদক্ষেপ হিসেবে দেখা উচিত নয়।’’