Print

চুমুর সাত স্বাস্থ্যকথা

লাইফস্টাইল ডেস্ক  | তারিখঃ ১৭.১০.২০১৫

বিশেষজ্ঞদের মতে, চুমু কেবলমাত্র প্রেম-ভালোবাসা-আদর প্রকাশের মাধ্যম নয়।

এর কিছু স্বাস্থ্যগত বিষয় রয়েছে। চুমুর মাধ্যমে মিলতে পারে ৭ ধরনের স্বাস্থ্যগত উপকারিতা। এগুলো জেনে নিন।
১. বন্ধন সুদৃঢ় করে : দম্পতিদের মধ্যে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করে লিপ কিস। চুমুর সময় উভয়ের দেহে অক্সিটোসিন হরমোন নিঃসৃত হয় যা বন্ধন দৃঢ় করে।
২. যৌন আকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধি করে : মানুষের নানা সমস্যা দূর করে যৌনতা। এতে আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং হৃদযন্ত্রের দেখভাল করে। আর যৌনতায় আকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধি করে চুমু।
৩. রোগ-বালাই দূর করে : বিজ্ঞানীরা বলেন, চুমুর মাধ্যমে দুজনের মধ্যে সুষ্ঠু বিপাকক্রিয়া শুরু হয়। বিশেষ করে চুমুর মাধ্যমে যদি ঘটনা যৌনতার দিকে গড়ায়, তবে বহু ক্ষতিকর ভাইরাসের পতন ঘটে।
৪. সুখী করে তোলে : চুমুর মাধ্যমে এন্ডোফিনস এবং এন্ডোরফিনস হরমোনের ক্ষরণ ঘটায় যা মানুষকে সুখী করে তোলে। অর্থাৎ, চুমুর মাধ্যমে মানুষ সুখকর অনুভূতি পায়।
৫. ব্যথা দূর করে : চুমুর কারণে দেহে অ্যান্ড্রেনালাইন হরমোনের ক্ষরণ ঘটে। এই হরমোন ব্যথা নাশ করে। চুমুর মাধ্যমে মাথাব্যথার মতো যন্ত্রণা থেকে মুক্তি মেলে।
৬. স্ট্রেস কমায় : মানসিক চাপ সামলে নিতে দারুণ এক মাধ্যম চুম্বন। দেহে কর্টিসল নামের স্ট্রেস হরমোন কমায় চুমু। কাজেই এর সঙ্গে স্ট্রেসও দূর হবে।
৭. ক্যালরি পোড়ায় : চুম্বনরত অবস্থায় ক্যালরি পোড়ে। এর সঙ্গে বিপাক ক্রিয়া আরো বেশি কার্যকর হয়ে ওঠে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ব্যায়ামাগারে সময় না দিতে পারলে যদি কেউ তার সঙ্গী-সঙ্গিনীর সঙ্গে চুমুর কার্যক্রমটি সারেন তবে যথেষ্ট ক্যালরি দূর হতে পারে।
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া