Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Star Cure

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ০৩.০৭.২০১৯

দাবার একটি ঘুঁটি ৫৫ বছর ধরে ড্রয়ারে পড়ে ছিল।

কোথা থেকে এসেছে, কে রেখেছে, সেটা জানা যায়নি। অন্যসব ছোট জিনিসের মতোই সেই ঘুঁটি। কিন্তু ওই দাবার ঘুঁটির দামই যে কয়েক কোটি টাকা হতে পারে, তা কখনো চিন্তাও করেনি কেউ!

জানা গেছে, ১৯৬৪ সালে স্কটল্যান্ডের একজন অ্যান্টিক জিনিসপত্রের বিক্রেতা অন্য এক অ্যান্টিক জিনিসপত্র বিক্রেতার কাছ থেকে পাঁচ পাউন্ডের বিনিময়ে দাবার ওই ঘুঁটিটি কিনেছিলেন। তার পর ওই বিক্রেতার মৃত্যুর পর ঘুঁটিটি সেভাবেই রাখা ছিল। তার মেয়ে বাড়িরই একটি আসবাবপত্রের ড্রয়ারে যত্ন করে রেখে দিয়েছিলেন সেটি।
 
১৯৬৪ সালে মাত্র পাঁচ পাউন্ডে কেনা সেই ঘুঁটি যে কোনো দিন ‘অ্যান্টিক’ আখ্যা পাবে, তা কোনো দিন স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি তিনি। তিনি বলেন, ঘুঁটিটি যে গুরুত্বপূর্ণ, সেটা জানতাম। তবে দামের চেয়ে এর অলৌকিক শক্তিই বেশি ভাবাত আমাদের। এর আসল মূল্য সম্পর্কে আমার বাবাও জানতেন না।

কয়েক মাস আগে, হঠাৎ এক দিন বিভিন্ন পুরনো বাড়িতে ঘুরে অ্যান্টিক দ্রব্য সংগ্রহ দেখতে গিয়ে সেই দাবার ঘুঁটির দিকে নজর পড়ে স্কটিশ প্রত্নতত্ত্ববিদ ও বিশেষজ্ঞ আলেকজান্ডার ক্যাডারের। তার পরই ঘুঁটিটি নিয়ে টানা ছয় মাস ধরে গবেষণা চালান ক্যাডার। 

তার পরই এটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হন তিনি। তিনি বলেন, আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা আবিষ্কার এটি। দীর্ঘ ছয় মাস রিসার্চ চালানোর পর সম্পূর্ণভাবে নিশ্চিত হয়ে তবেই ঘোষণা করা হয়েছে এই দাবার ঘুঁটি সম্পর্কে।

তিনি জানান, প্রহরীর মতো দেখতে ছোট্ট ওই ঘুঁটিটির মাথায় ছিল হেলমেট আর হাতে তলোয়ার। সেটির উচ্চতা ৮ দশমিক ৮ সেন্টিমিটার। এ মাসেই লন্ডনের সদবির ‘ওল্ড মাস্টার স্কালপচার অ্যান্ড ওয়ার্ক অব আর্ট’-এ নিলামে তোলা হয়েছে ওই দাবার ঘুঁটিটি। ঘুঁটির দাম নিলামে ওঠে সাত লাখ ৩৫ হাজার পাউন্ড।

আলেকজান্ডার জানান, তার গবেষণায় মনে হয়েছে, ১৮৩১ সালে স্কটল্যান্ডের লুইস আইলের এক বালির স্তূপ থেকে উদ্ধার করা হয় ‘ওয়ালরাস টাস্ক ওয়ারিয়র চেসম্যান’-এর দাবার সেট। 

বিশেষজ্ঞদের অনুমান, ১২ শতাব্দীর শেষ ভাগে বা ১৩ শতাব্দীর প্রথমার্ধে এই দাবাটি নরওয়েতে তৈরি হয়েছিল সিন্ধুঘোটকের দাঁত দিয়ে। সম্ভবত এগুলো তৈরি হয়েছিল সেখানকার যোদ্ধাদের প্রতিকৃতি অনুযায়ী।

ওই দাবার সেটের সঙ্গে মোট ৯৩টি ঘুঁটি উদ্ধার করা হয়, যার ৮২টি ঘুঁটি ব্রিটিশ মিউজিয়ামে আর বাকি ১১টি স্কটল্যান্ডের ন্যাশনাল মিউজিয়ামে সংরক্ষিত রয়েছে। যার মধ্যে রাজা রানি ছাড়াও বিশপ, যোদ্ধা, প্রহরী ও বোড়ে আছে।

তবে ব্রিটিশ প্রত্নতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা জানান, ওই দাবার সেটের মোট ঘুঁটির সংখ্যা ৯৮। এর মধ্যে ৯৩টি ঘুঁটি উদ্ধার হয়েছে এবং একটি যোদ্ধা ও ৪টি প্রহরীর খোঁজ মেলেনি। 

ওই খোঁজ না মেলা চারটি প্রহরীর মধ্যেই একটি স্কয়ল্যান্ডে মিলেছে বলে এক রকম নিশ্চিত বিজ্ঞানীরা। ফলে এমন ঐতিহাসিক একটি জিনিসের দাম যে খুব কম হবে না, সেটাই তো স্বাভাবিক।