আজ রবিবার, ২০ আগস্ট, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন * শোকের দিনে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন চলতে থাকলে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা নয়: কাদের * মৌলভীবাজারের রাজনগরে যুদ্ধাপরাধ মামলার সাক্ষীর ওপর হামলার অভিযোগ * গাজীপুরের টঙ্গীর রাস্তায় দুইজনের লাশ; পুলিশের ধারণা, তারা গাড়িচাপায় নিহত হয়েছে * ঢাকার পান্থপথে একটি আবাসিক হোটেলে পুলিশের অভিযানে সন্দেহভাজন জঙ্গি নিহত * আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে ওই ‘জঙ্গি’সুইসাইড ভেস্টে বিস্ফোরণ ঘটায়: পুলিশ * নিহত যুবক খুলনা বিএল কলেজের ছাত্র, বাড়ি ডুমুরিয়ায়; পুলিশ বলছে, সে নব্য জেএমবির সদস্য

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

অন্ধকারে যে সৈকতে গেলে আর ফিরে আসে না কেউ

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১১.০৫.২০১৬

গুজরাট বললে শুধু ধোকলা থেপলার মতো খাবার বা আমেদাবাদ-সুরাতের শিল্প প্রতিষ্ঠানের কথাই মনে আসে না৷

মনে পড়ে নানা সুদৃশ্য সৈকতের কথাও৷ কিন্তু জানেন কি এই গুজরাটের একটি সুদৃশ্য সৈকত আছে যার নাম শুনলেই চোখ-মুখ ফ্যাকাশে হয়ে আসে সকলের৷ কী রাত কী দিন নির্জন এই সৈকতের ছায়াও এড়িয়ে চলেন সকলে৷ নাম তার দুমা বিচ৷ আরব সাগরের তীরে সুরাত জেলায় আছে দুমা সৈকতটি৷ এটি ভারতের ভৌতিক স্থানগুলির মধ্যে অন্যতম৷ কেন এত ‘হন্টেড' দুমা বিচ? দক্ষিণ গুজরাটের সুরাত শহর থেকে ২১ কিলোমিটার দূরে আছে নির্জন এই দ্বীপটি৷ দ্বীপটির বালির রং সোনালি নয় বরং কালো৷ দিনে তো নির্জন থাকেই, রাতে এ পথ এড়িয়েই চলেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷ সুরাতবাসীরা এই দ্বীপকে শ্মশান হিসেবে ব্যবহার করেন৷ স্থানীয়দের বিশ্বাস, যে সব মৃত ব্যক্তিদের আত্মারা মুক্তি লাভ করে না সেই সব অতৃপ্ত আত্মারা ঘুরে বেড়ায় দুমা বিচে৷ সন্ধ্যা নামলে আস্তে আস্তে বদল ঘটে দুমা বিচের চরিত্রে৷ যে সব অকুতোভয় ব্যক্তিরা রাতে এখানে থাকার সাহস দেখিয়েছে, কেউ আর বেঁচে ফিরে আসেনি৷ কোথায় যে তারা রাতারাতি হাপিস হয়ে গেল তে কেউ জানেনা৷ কেউ কেউ বলেছে অন্ধকার নামতেই তারস্বরে চেঁচাতে থাকে বিচের কুকুরগুলি৷ কারওকে দেখে যেন আতঙ্কে ওই রকম অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে কুকুরগুলো৷ কেউ আবার বিচ দিয়ে হাঁটার সময় কানের পাশে কারওর ফিসফিস শব্দ বা হাসির আওয়াজ শুনেছে বলে দাবি করেছে৷ কিন্তু কেউই কোন মানুষকে দেখতে পায়নি আশেপাশে৷ অনেকে দাবি করেছে, এই বিচের হাওয়ায় যেন ভারি অশরীরিদের অতৃপ্ত দুঃখের ভারে৷