Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Star Cure

সৌভাগ্যের বৃষ্টি, দুর্ভাগ্যের বৃষ্টি

বিডিনিউজডেস্ক.কম   
তারিখঃ ১৪.০৬.২০১৫ 
গরমের তীব্রতা কাটিয়ে একটু স্বস্তি ফিরে পেলো দেশের মানুষ।কিন্তু এ ভয়াবহ গরমের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেয়ে একটুকরো স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে না ফেলতেই যেন পানিতে তলিয়ে গেল পুরো শহর!! সৃষ্টিকর্তার অপার মহিমার বৃষ্টি যেন একমুহূর্তেই বদলে গেল ভয়াবহ এক দুঃস্বপ্নে।

সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতার সমস্যা  জনজীবনকে বিপন্ন করে তুলেছে। চরম ভোগান্তিতে পড়ছে ঢাকার মানুষ।ঢাকার কারওয়ানবাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় দেখা যায় মানুষের ভয়াবহ দুর্ভোগের চিত্র।যাত্রীদের গণপরিবহনের জন্য অধির অপেক্ষা, পায়ে হেঁটে নিজ গন্তব্যে চলার পতে কেউবা খোলা ডাষ্টবিনে পড়ছেন, আর ভয়াবহ জানজটের সমস্যাতো রয়েছেই। এই জলাবদ্ধতা ঢাকাবাসীর জন্য এক চরম বিপর্যয়। বস্তিবাসীর অবস্থা আর বলার অপেক্ষা রাখে না, তারা যেন পানির উপর ভাসছে।

কেন এ জলাবদ্ধতা? কারন অনুসন্ধানে নেমে যা পাওয়া গেল তা অত্যন্ত দুঃখজনক। খালগুলোর অব্যবস্থাপনার জন্য পানি নিষ্কশিত হচ্ছেনা।ওয়াসার পানি যাচ্ছে রাস্তার উপর দিয়ে।আর কোন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে কিছু জানতে চাইলে তারা একে অন্যের উপর দায়ভার চাপিয়ে নিজেদের নির্দোষ প্রমানের প্রচেষ্টায় ব্যস্ত। আর তাদের এ লুকুচুরি খেলার বলি হচ্ছে সাধারণ জনগণ।প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, সিটি কর্পোরেশন, ওয়াসা, পানি উন্নয়ন বোর্ড, যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ,  ট্রাফিক পুলিশ- সবাই মিলে সম্মিলিত ভাবে বর্ষা মৌসুমে বিশেষ কর্মসূচি নিলে এই জলাবদ্ধতা ও যানজটের অভিশাপ থেকে সবার রেহাই পাওয়া সম্ভব।
এই সমস্যা নিরসনে গত চার বছরে বাংলাদেশ সরকারের ৩০২ কোটি টাকা খরচ হওয়া সত্ত্বেও সমস্যা মেটেনি।এদিকে নির্বাচনের সময়ে ঢাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে অবশ্যই কোন উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিলেও এখন  দুই মেয়রই সুর বদলে  বলেছেন যে, ড্রেনগুলোর দেখাশুনার দায়িত্ব ওয়াসার।

এদিকে ওয়াসা বলেছে, ২৬ টি খালের মধ্যে ১৯ টির অবস্থা খারাপ অর্থাৎ বেদখল। বড় বড় ড্রেনগুলো ময়লা আবর্জনায় ভরে থাকে। দেশের বৃহত্তর সার্থে উভয়েরই সমস্যার মোকাবিলায় আসতে হবে এ ব্যপারে সরকারের  আশুদৃষ্টির প্রয়োজন যেন অচিরেই ঢাকাবাসী এই জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পায়।    

 

 

লেখকঃ নাজমা বেগম