Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Star Cure

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ৩০.০৫.২০১৯

 

কাগজ পেচিয়ে বা কাঠি দিয়ে কান খোঁচানোর চেয়ে কটন বাড অনেক ভাল ও নিরাপদ তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

কিন্তু বাস্তবে এই কটন বাডও আমাদের কানের মারাত্মক ক্ষতি করে। বছর খানেক আগের একটি সমীক্ষায় সামনে আসে বেশ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর তথ্য। এতে বলা হয়েছে, প্রতি বছর সারা বিশ্বে ৭ হাজারেরও বেশি মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েন কটন বাড ব্যবহারের ফলে।

কটন বাড ব্যবহারকারীদের মধ্যে মাত্র ৩৬ শতাংশ মানুষ এটির ক্ষতিকর দিকগুলি সম্পর্কে অবগত। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় হল, কটন বাডের ক্ষতিকর দিকগুলির সম্পর্কে জেনেও তারা দিনের পর দিন এটি ব্যবহার করে চলেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার ওয়ারেনটনের (কান, নাক, গলা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ) ওটোল্যারিঙ্গোলজিস্ট ডা. ক্রিস্টোফার চ্যাং-এর মতে, কটন বাড ব্যবহারের ফলে কানের এয়ারড্রাম মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। এর ফলে কানে ব্যথা, রক্তপাত ছাড়াও নানান সমস্যা দেখা দিতে পারে।

তিনি বলেন, কটন বাড ব্যবহারের ফলে কানের ভিতরে থাকা নরম অস্থিগুলো আঘাতপ্রাপ্ত বা ক্ষতিগ্রস্থ হলে শ্রবণশক্তিও দুর্বল হয়ে পড়তে পারে। শুধু তাই নয়, অসাবধানে কটন বাড ব্যবহার করলে শ্রবণশক্তি সম্পূর্ণ হারানোর আশঙ্কাও থাকে।

মার্কিন গবেষকদের মতে, কানের ভেতরে তৈরি হওয়া আঠালো পদার্থ বাইরের ধুলোবালি, সংক্রমণ থেকে আমাদের কানকে রক্ষা করে। কানের ভিতরের এই আঠালো পদার্থ অতিরিক্ত পরিমাণে জমে গেলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা আমাদের ঘুমের সময় বা স্নানের সময় নিজে থেকেই বাইরে বেরিয়ে আসে।

তবে একান্তই যদি তা না হয় আর কানের ভেতরে যদি খুব অস্বস্তি বা চুলকানি হয়, তাহলে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের পরামর্শ অনুযায়ী কোনো ইয়ার ড্রপ ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে যখন তখন কটন বাডের ব্যবহার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলাই উচিত।