মুদ্রণ

নারীর যৌনতা বিষয়ক কিছু ভ্রান্ত ধারণা

বিডিনিউজডেস্ক.কম
তারিখঃ ১২.০৫.২০১৫
সন্তান গর্ভে ধারণ করা ও জন্ম দান নারীর প্রকৃতিপ্রদত্ত একটি ক্ষমতা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে এ বিষয়ে অধিকাংশ নারীর রয়েছে ব্যপক ভ্রান্ত ধারণা যা লালন করে একজন নারী পড়তে পারেন নানান রকম সমস্যায়।

নারীর যৌন প্রজনন, অর্থাৎ সন্তান ধারণ এবং জন্মদানের বিষয়ে প্রচলিত কিছু ভ্রান্ত ধারণাঃ
১) খুব প্রচলিত একটি কুসংস্কার জাতীয় ধারণা হলো, দিনে একবারের বেশি শারীরিকভাবে মিলিত হলে তাদের গর্ভধারণের সম্ভাবনা বাড়বে। কেউ কেউ এমনটাও বিশ্বাস করেন, বিশেষ কিছু অবস্থানে মিলিত হলে তাদের গর্ভধারণের সম্ভাবনা বেশি হতে পারে।

২) গর্ভধারণের জন্য আসলে যে ব্যাপারগুলো কাজ করে তার ব্যাপারে জানেন না অনেকেই। যেমন বয়স বাড়ার সাথে সাথে যে উর্বরতা এবং গর্ভধারণের সম্ভাবনা কমতে থাকে তা জানা নেই অনেকেরই। বিভিন্ন যৌনরোগ বা ইনফেকশনের ফলে কমে যায় গর্ভধারণের ক্ষমতা- এটাও জানেন না অনেকেই।

৩) গর্ভধারণের জন্য নারীদের শরীরে থাকতে হয় ডিম্বাণু। এই ডিম্বাণু জন্ম থেকেই একটা নির্দিষ্ট পরিমাণে থাকে নারীর শরীরে। এটা সময়ের সাথে সাথে কমে যায়, নতুন করে তৈরি হয় না। অনেকেই এ ব্যাপারটা জানেন না এবং মনে করেন ডিম্বাণু আবার নতুন করে তৈরি হবে।

৪) বর্তমান সময়ে প্রযুক্তির যত অগ্রগতি ঘটছে, ততই বাড়ছে গর্ভপাত এবং জন্মগত ত্রুটির সংখ্যা। এবং এর জন্য অনেকাংশেই দায়ী প্রচণ্ড গতিশীল জীবন যাত্রা। এবং এ ব্যাপারে অনেকেই সচেতন নন।

৫) নিজের শরীরের গঠনের ব্যাপারেও সচেতন নন অনেক নারীই। ঋতুস্রাবের ঠিক ১৪ দিন আগে ডিম্বপাত হয় এবং এ সময়টায় যে গর্ভধারণের সম্ভাবনা বেশি থাকে, এটা জেনে রাখা উচিৎ সবারই। যারা গর্ভধারণ করতে চান এবং যারা গর্ভধারণ এড়াতে চান উভয়ের জন্যেই এটা জেনে রাখা জরুরী।

৬) ঋতুস্রাবের সময়ে ব্যাথা বা অনিয়মিত ঋতুচক্র অনেকেরই আছে, এটা যে গর্ভধারণের সম্ভাবনাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, এটা জানেন না অনেকেই। ব্যথা স্বাভাবিক ধরে নিয়ে ডাক্তারের শরণাপন্ন হন না।

৭) অতিরিক্ত ওজন বা ওবেসিটির কারণে অনেক রোগ হয়ে থাকে, এটা আমাদের জানা। কিন্তু এর প্রভাব যে আমাদের প্রজননক্ষমতার ওপরে পড়ে, তা আমলে আনেন না কেউ।

নিজ জীবন সুখী করতে নিজ প্রজননতন্ত্রের বিষয়ে এত সকল ঘাটতি থাকা অনুচিত। তাই নিজের ব্যপারে সচেতন হতে হবে।