Thursday 30th of March 2017

সদ্য প্রাপ্তঃ

***৩১ মার্চ ঢাকা সফরে আসছেন ভারতীয় সেনা প্রধান***

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

ঘুমের ৯ সমস্যা দূর করার সহজ উপায়

লাইফস্টাইলডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৮.০১.২০১৭

ঘুমের সময় অনেকেই নানা ধরনের সমস্যায় পড়েন।

আর এতে আরামদায়ক ঘুম অনেকটা যেন অসম্ভব হয়ে পড়ে। ঘুমের কিছু সমস্যা দূর করার সহজ উপায় নিচে তুলো ধরা হলো-

ঘুম আসতে দেরি : বিছানায় শুয়ে থাকার পরও ঘুম যদি আসতে না চায় তাহলে কী করবেন? ঘুমিয়ে পড়তে যদি দেরি হয় তাহলে এর কারণ নির্ণয় করতে হবে। প্রতিদিন পর্যাপ্ত শারীরিক অনুশীলন করতে হবে যেন রাতে আপনার ঘুম আসে। চা-কফির কারণে অনেকের ঘুম আসে না। সে ক্ষেত্রে ঘুমাতে যাওয়ার ৭ ঘণ্টা আগে থেকেই চা-কফি বা ক্যাফেইন বাদ দিতে হবে।

ঘাড় ব্যথা : আপনার যদি বালিশের কারণে ঘাড় ব্যথা হয় তাহলে বালিশ পরিবর্তন করুন। কোন ধরনের বালিশে ভালো ঘুম হয় তা পর্যবেক্ষণ করুন।

রাতে ঘুম ভেঙে গেলে : কক্ষের তাপমাত্রা আরামদায়ক পর্যায়ে রাখুন। ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে এমন বিষয় দূর করুন। বাইরের আলো যেন ঘরে না আসে সে জন্য ভারি পর্দা ব্যবহার করুন। একইভাবে শব্দ ও অন্যান্য ব্যাঘাত দূর করুন।

নাক ডাকা : নাক ডাকার কারণে যদি ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে তাহলে এ সমস্যা দূর করতে হবে। একপাশ হয়ে শুয়ে মাথার নিচে হাত রেখে ঘুমালে অনেকের এ সমস্যা লাঘব হয়। ঘুমানোর আগে ভালোভাবে পানি দিয়ে নাক পরিষ্কার করুন। সম্ভব হলে স্যালাইন ওয়াটারের নাকের ড্রপ ব্যবহার করুন। অ্যালকোহলজাতীয় পানীয় বর্জন করুন।

পেট জ্বালা, গ্যাস সমস্যা : অনেকেরই পেট জ্বালা কিংবা গ্যাস সমস্যার কারণে ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে ঘুমানোর আগে এমন কোনো খাবার খাওয়া যাবে না যা পেট জ্বালা কিংবা গ্যাস সমস্যার কারণ হতে পারে। কাঁধ ব্যথা : আপনার যদি কাঁধের ব্যথা বা অসুবিধার কারণে ঘুমাতে সমস্যা হয় তাহলে চিৎ হয়ে শুবেন। এরপর একটি বালিশ কোলে নিয়ে ঘুমাবেন।

ঘুম থেকে উঠতে কষ্ট : আপনার যদি ঘুম থেকে উঠতে কষ্ট হয় তাহলে প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমানো ও ওঠা অভ্যাস করুন। এমনকি ছুটির দিনেও সে অভ্যাস বজায় রাখুন।

মাংসপেশিতে খিঁচুনি : মাংসপেশির খিঁচুনি বা অস্বস্তির কারণে যদি আপনার ঘুমে সমস্যা হয় তাহলে ঘুমানোর আগেই মাংসপেশি ম্যাসাজ করে নিন। এ ছাড়া ওয়ার্মিং ও স্ট্রেচিংয়েও উপকার পাওয়া যাবে।

পিঠ ব্যথা : পিঠ ব্যথার কারণে ঘুমে সমস্যা হলে কী করবেন? এ ক্ষেত্রে ব্যথা গুরুতর হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। তবে আপনি যদি উপুর হয়ে ঘুমান তাহলে সাময়ীকভাবে একটি বালিশ উরুর নিচে রাখতে পারেন। আর সোজা হয়ে ঘুমালে বালিশটি পেট বা পায়ের নিচে রাখতে পারেন।