আজ মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** ময়মনসিংহে সুটকেসের ভেতর যুবকের লাশ * ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষা স্থগিত * দিনাজপুরে বজ্রপাতে নিহত ৬ * দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে 'সুপার ম্যালেরিয়া' * রিয়ালের পথের ইতি টানতে চান বেনজেমা * মধ্যবাড্ডায় অগ্নিকাণ্ডে মায়ের মৃত্যু, ২ সন্তান দগ্ধ * পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই: বাড়ছে ক্ষোভ, ঝিমিয়ে পড়া

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

লাইফস্টাইলডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১৩.১১.২০১৭

বিয়ে, জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। জীবনের একটি বড় বন্ধনের অধ্যায়ও এটি।

তবে হ্যাঁ বিয়ের আগে নিজের জন্য বাচাঁ আর বিয়ের পরে পরের জন্য বাচঁতে শেখা।ধর্মীয় ও সামাজিক সব দৃষ্টিকোণ থেকেই বিয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ইসলামে বিয়েকে বলা হয়েছে ঈমানের অর্ধেক। বিয়ের মাধ্যমেই ঈমানের পূর্ণতা পায়। বিয়ে মানব জীবনের অন্যতম চাহিদাও বটে। তবে ব্যক্তি যখন বিয়ের উপযুক্ত হয় তার জন্য বিয়েকে ফরজ করেছে ইসলাম।

কিন্তু বর্তমানের এই আধুনিক যুগে বিয়ে করার আগে হাজার বার ভাবতে হয় ক্যারিয়ার সম্পর্কে, জীবনের লক্ষ্য সম্পর্কে। বিয়েটা যেন এখন গৌন রূপ ধারণ করেছে। তবে হ্যা, প্রাকৃতিক চাহিদা মেটাতে তারা লিভ টুগেদারও করছে, কিন্তু জীবনটাকে একেবারে গুছিয়ে নেয়ার আগে বিয়ে করতে চাইছে না।

প্রেম আর বিয়ে পাশাপাশি যদি বলি, তবে একটিতে যেমন দায়িত্ব নেই, আছে কেবল আনন্দ। আরেকটায় ঠিক তেমনই আছে ভালো লাগার পাশপাশি দায়িত্ব নেয়ার বিষয়টাও।

আদিমকালে মানুষের বিয়ে নিয়ে এত জটিলতা ছিল না, কারণ তাদের জীবন এতটা জটিল ছিল না। তাই কম বয়সেই প্রেমে পড়তো, কম বয়সেই বিয়ে করতো এবং কম বয়সেই বাচ্চা নিয়ে জীবন সম্পর্কে ভাবনার ইতি টানতো।

দেরিতে হোক আর দ্রুতই হোক- ব্যতিক্রম কিছু ঘটনা ছাড়া প্রত্যেকেই চায় বিয়ের ব্যাপারটি সঠিক সময়ে সেরে ফেলতে। শ্বাশ্বত প্রাকৃতিক নিয়ম হিসেবে এটাই প্রচলিত। এটি আরো জাগ্রত হয় যখন আপনি দেখেন যে, আপনার কনিষ্ঠরাও বিয়ে করে ফেলছে। এ ক্ষেত্রে বয়স একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার।

বিয়ের সঠিক বয়স কোনটি তা নিয়ে অনেক মতবিরোধ রয়েছে। অনেকেই বলবেন, বিয়ে ও সম্পর্ক আসলে কী তা বুঝে তবেই বিয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা উচিত। আর এই সঙ্গে অর্থনৈতিক বিষয়ও জড়িত থাকে বলে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী না হওয়া পর্যন্ত অনেকেই বিয়ের কথা ভাবেন না।

কিন্তু সত্যি বলতে কি, দ্রুত বিয়ে করে ফেলার সিদ্ধান্ত কিন্তু বেশ ভালো বুদ্ধিমানের মতো কাজ। বয়স একটু কম থাকলেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলা উচিত, এতে জীবনটা অনেক বেশিই সহজ মনে হবে আপনার কাছে। অনেক ধরনের সমস্যা থেকে অনায়াসেই মুক্ত থাকতে পারবেন। কীভাবে জানতে চান?

যদি বয়স ৩০ পার করে বিয়ে করেন তাহলে স্বাভাবিকভাবেই আপনার বয়সের কারণে আপনার মধ্যে যে গাম্ভীর্য চলে আসবে তার জন্য সম্পর্ক খুব বেশি মধুর ও ঘনিষ্ঠ হবে না। ব্যাপারটি বরং এমন হবে বিয়ে করার কথা তাই বিয়ে করেছি। এ কারণে আগেই বিয়ে করে ফেলা ভালো, যখন আবেগ কাজ করে অনেক।

বেশি বয়সে বিয়ে করলে স্বামী-স্ত্রী নিজেদের জন্য কতটা সময় পান? বছর ঘুরতে না ঘুরতেই সন্তানের দায়িত্ব ঘাড়ের ওপর এসে পড়ে। আর একবার সন্তান হয়ে গেলে দুইজনের একান্ত সময় কাটানো আর হয়ে উঠে না। কিন্তু অল্প বয়সেই বিয়ে করে ফেললে সঙ্গীর সঙ্গে অনেকটা সময় পাওয়া যায়। এতে সম্পর্ক অনেক ভালো ও মধুর থাকে।

‘একজনের চেয়ে দুজন ভালো’- বিষয়টি নিশ্চয়ই না বোঝার কথা নয়। একাই সুখ-দুঃখ ভোগ করার চেয়ে দুজনে ভাগাভাগি করে নিলে অনেকটা সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। অল্প বয়সেই বিয়ে করলে দুজনের জীবনের সবকিছুই ভাগ করে নেয়া যায় বলে মানসিক চাপটাও কম পড়ে।

সন্তানের জন্য খুব ভালো মাতা-পিতার উদাহরণ হতে পারবেন যদি বিয়ে আগে করে ফেলেন। সত্যি বিষয়টি কেউ মানুন আর নাই মানুন না কেন, মানুষের গড় আয়ু কিন্তু কমে এসেছে। আপনি দেরিতে বিয়ে করলে সন্তান মানুষ করার বিষয়টিও পিছিয়ে যাবে এবং আপনার মানিসকতাও কিন্তু দিনকে দিন নষ্ট হতে থাকবে।

দুর্ঘটনাবশত অনেকেই বিয়ের সিদ্ধান্ত ঠিক নিতে পারেন না। তাই এখন ডিভোর্সের সংখ্যাও বাড়ছে। জলদি বিয়ে করার কিন্তু এই দিক থেকেও সুবিধা রয়েছে। যদি অল্প বয়সে বিয়ে হয়ে অল্পতেই ভেঙে যায়, তাহলে জীবনটাকে নতুন করে গুছিয়ে নেয়ার দ্বিতীয় সুযোগ পাওয়া যায় যা দেরিতে বিয়ে করলে পাওয়া সম্ভব হয় না

এগুলো তো গেল সিরিয়াস বিষয়, এখন শুনুন আগে ভাগে বিয়ে করে ফেলার একটু অন্যরকম সুবিধাগুলো। আগে বিয়ে করে ফেললে আপনার কাছে এসে কেউ ‘কেন বিয়ে করছ না’, ‘কবে বিয়ে করবে’, ‘বয়স বেড়ে যাচ্ছে’, ‘কাউকে পছন্দ আছে কি’ ইত্যাদি ধরনের বিরক্তিকর কথা শোনার হাত থেকে মুক্তি পেয়ে যাবেন।

প্রবাদ আছে, মানুষ জীবনে তার লক্ষ্য কিংবা কতটুকু সফল হতে পারবে, সেটা ৩৩-৩৫ বছর বয়সের মধ্যেই বুঝতে পারে। ব্যাপারটা এমনই, আপনি এই বয়সে এসে অদূর ভবিষ্যত নিয়ে হালকা- পাতলা চিন্তা করতে পারবেন, জীবনের শেষ গন্তব্যে কী করবেন, সেটা চিন্তা করতে পারবেন। কিন্তু বিয়ের মানে কিন্তু তা নয়। জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের নাম বিয়ে।