আজ শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় * সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

জয়ের ২৫০০ কোটি টাকার তদন্ত চান নজরুল

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৪.০৫.২০১৬

প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় বাংলাদেশের নাগরিক হওয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার একাউন্টে আড়াই হাজার কোটি টাকার ‘সন্দেহজনক লেনদেনের’ ঘটনা রাষ্ট্রীয় স্বার্থে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানের মুক্তির দাবিতে এ সভার আয়োজন করা হয়।নজরুল ইসলাম বলেন, এফবিআইয়ের (যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা) একজন এজেন্টকে ঘুষ দিয়ে এক প্রবাসী বাংলাদেশি তরুণ বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পুত্রের ব্যাপারে কিছু তথ্য সংগ্রহ করেছিল। সেখানে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর পুত্রের একটি অ্যাকাউন্টেই আড়াই হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ তিনশো মিলিয়ন ডলার জমা আছে। এটি সন্দেহজনক লেনদেন।

শেয়ারবাজার ও ব্যাংক লুটের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি বলেন,  আমাদের দেশের শেয়ারবাজার ও ব্যাংক লুট হয়ে গেছে। সে দেশের একজন নাগরিকের বিদেশের কোনো একাউন্টে  যদি আড়াই হাজার কোটি টাকার মতো বড় অ্যামাউন্টের সন্দেহজনক লেনদেন হয়, তাহলে রাষ্ট্রের দায়িত্ব হচ্ছে- সে ব্যাপারে খোঁজ নেয়া, তদন্ত করা। জয় বাংলাদেশের নাগরিক। রাষ্ট্র আমাদের সকলের। তাই ব্যক্তি কে, সেটা রাষ্ট্রের দেখার বিষয় নয়। রাষ্ট্রের টাকা হলে সে টাকা অবশ্যই ফিরিয়ে আনতে হবে। আর যদি তদন্তে দেখা যায়, এটি রাষ্ট্রের টাকা না; তারই ন্যায্য, ট্যাক্স দেয়া ও উপার্জনের টাকা, তাহলে তো কোনো অসুবিধা নেই।

নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বিএনপি একটি বড় রাজনৈতিক দল। এখানে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকবে, এটিই স্বাভাবিক। তাছাড়া আমরা নিজেরা কেউ কারো শত্রু নই। দেশে এখন দুঃসময় চলছে।  আমাদের মধ্যে এখন ঐক্য দরকার। দলটাকে শক্তিশালী করে আন্দোলনকে জোরদার করতে হবে। সেই লড়াইয়ে জিততে না পারলে শুধু মান্নান সাহেব না আমাদের সবাইকেই জেলে যেতে হবে, কেউ বাদ যাবে না।গাজীপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী স্যায়েদুল আলম বাবুলের সভাপতিত্বে এতে অন্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন-বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, খায়রুল কবির খোকন, সহ-দপ্তর সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সম্পাদক আফজাল এইচ খান প্রমুখ।