আজ শুক্রবার, ২৬ মে, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে সরিয়ে নেওয়া হল আলোচিত ভাস্কর্যটি * মধ্যরাতে ভাস্কর্য অপসারণের কাজ চলার মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের সামনে বিক্ষোভ * ‘চাপে পড়ে’ ভাস্কর্যটি সরানোর কথা বললেন ভাস্কর মৃণাল হক; তবে কার চাপ, তা বলেননি তিনি * খুলনা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদককে গুলি চালিয়ে হত্যা, গুলিতে তার সহকারীও নিহত * সরকার বিরোধী নেতা-কর্মীদের হত্যার মিশনে, বললেন খালেদা জিয়া * মাগুরায় জেলা প্রশাসককে ঘুষ দিতে গিয়ে ৫ লাখ টাকাসহ এক ব্যক্তি গ্রেপ্তার

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

হতাশা থেকে কুৎসা রটাচ্ছেন খালেদা : হাছান মাহমুদ

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৪.০৫.২০১৬

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া হতাশা থেকে সরকারি দলের শীর্ষ পর্যায়ের পরিবার নিয়ে কুৎসা রটনার নোংরা খেলায় মেতে উঠেছেন

বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।বিএনপি নেত্রীর উদ্দেশে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আপনার বিষয়ে নোংরা কিন্তু সত্য অনেক বিষয় আমাদের জানা আছে। যদি এই নোংরা খেলা খেলেন, তবে সেই বিষয়গুলো আমরা জাতির সামনে তুলে ধরতে বাধ্য হবো।’তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া এখন হতাশা ও নিজের অপকর্ম ঢাকার জন্য অন্যের চরিত্র হননের নোংরা খেলায় মেতে উঠেছেন। তা থেকেই তিনি সরকার ও সরকারি দল ও সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের পরিবার সম্পর্কেও কুৎসা রটনা করছেন।খালেদা জিয়াকে আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ আখ্যায়িত করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, তিনি কালো টাকা সাদা করেছেন। আয়ের উৎস দেখাতে পারেননি। এ জন্য তার ইনকাম ট্যাক্সের ফাইল ক্লিয়ার হয়নি।সরকারের আমলে সাত বছরের হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্যে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিনি (খালেদা) হয়তো ভুলে গেছেন, তিনি যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন হাওয়া ভবন প্রতিষ্ঠা দেশে সমান্তরাল সরকার পরিচালনা করা হয়েছে। সেই হাওয়া ভবনের মাধ্যমে তার পুত্রের নেতৃত্বে টাকা লুটপাট করা হয়েছে। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেশে কয়েক লাখ কোটি টাকা দুর্নীতি হয়েছে।বিএনপি আমলে বিদ্যুতের খাম্বা লাগিয়ে ২১ হাজার কোটি টাকা লোপাট করা হয়েছিল এমন দাবি করে তিনি বলেন, শুধুমাত্র খালেদা জিয়ার পুত্র দুর্নীতিবাজ তা নয় পরিবারের অন্য সদস্যরা বিশেষ করে তার ভাইয়েরা ৯৮০ কোটি বিশ লাখ টাকা লোপাট করেছে। যাকে ব্যাংক ডাকাতে বলে আখ্যায়িত করেন তিনি।সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন দলের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক আব্দুর সাত্তার, কার্যনির্বাহী সদস্য সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ।