Print
বিভাগঃ রাজনীতি

নাক গলানো বন্ধ করতে ইসলামাবাদকে আহ্বান

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৮.০৫.২০১৬

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের মতো বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো বন্ধ করতে ইসলামাবাদকে আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা।

এর পাশাপাশি ১৯৭৪ সালের ত্রিপক্ষীয় চুক্তির অপব্যাখ্যা দেওয়াও বন্ধ করতে বলেছে। আজ রোববার দুপুরে পররাষ্ট্র দপ্তরে প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের এ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন গত বৃহস্পতিবার খারিজ করেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ফলে তাঁর মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল থাকে। এ ব্যাপারে গত শুক্রবার দেওয়া এক বিবৃতিতে উদ্বেগ জানায় পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। গতকাল শনিবার পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক ‘ডন’ এ খবর প্রকাশ করে। এ নিয়েই প্রতিক্রিয়া জানান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘পাকিস্তানের প্রতিক্রিয়া আমাদের হতাশ করেছে। আমরা কখনোই আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কারও উদ্বেগকে স্বাগত জানাই না। বারবার মনে করিয়ে দেওয়ার পরও তারা এটি করছে। তারা বলছে যে ব্যথিত হয়েছেন। কিন্তু আমরা যাঁদের বিচার করছি, তাঁরা বাংলাদেশের নাগরিক।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ১৯৭৪ সালে যে ত্রিপক্ষীয় চুক্তির কথা বলা হচ্ছে, সেখানে উল্লেখ ছিল পাকিস্তানের যে ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীকে তাঁদের দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছিল, তাঁদের বিচার করা হবে না। ওই চুক্তিতে কিন্তু বলা হয়নি যেসব যুদ্ধাপরাধী বাংলাদেশের নাগরিক, তাঁদের বিচার করা যাবে না। শাহরিয়ার বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধীরা পাকিস্তানের হয়ে কাজ করেছেন। তাই তাঁদের জন্য সেই জায়গা থেকে পাকিস্তান ব্যথিত হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি এটিকে বিপজ্জনক মনে করি, কারণ মানবতাবিরোধী বা যুদ্ধাপরাধীরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আশ্বস্ত করার একটি জায়গা খুঁজছেন। পাকিস্তান রাষ্ট্র হিসেবে তাঁদের পাশে থাকবে, এ রকম একটি বার্তা বোধ হয় দিতে চাইছে।’ তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, তা না হলে নিজামীর বিচারে পাকিস্তান কেন ব্যথিত হবে? এসব কারণে প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় থেকে দূরে থাকতে এবং ৭৪-এর চুক্তির অপব্যাখ্যা দেওয়া বন্ধ করতে পাকিস্তান সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। শুক্রবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্ট জামায়াতে ইসলামীর নেতা মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির দণ্ডের বিরুদ্ধে পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ করে দেওয়ায় আমরা উদ্বিগ্ন’। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এ ব্যাপারে আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলোর প্রতিক্রিয়া অনুসরণ করছি। বিবৃতিতে ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে চলমান বিচারকে ‘বিতর্কিত’ বলা হয়েছে। ৫ মে মানবতাবিরোধী অপরাধী জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির দণ্ড বহাল রেখে রায় পুনর্বিবেচনার আপিল খারিজ করে দেন আদালত।