Print
বিভাগঃ রাজনীতি

'খালেদা জিয়া পাকিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে বাংলাদেশে রাজনীতি করছেন'

জাতীয় ডেস্ক | তারিখঃ ১২.০৫.২০১৬

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া পাকিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে বাংলাদেশে রাজনীতি করছেন

বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।তিনি বলেন, প্রত্যেকটি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায়ের পরে পাকিস্তান যে প্রতিক্রিয়া দেয় খালেদা জিয়া ও তার দলের পক্ষ থেকেও একই রকম প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়। খালেদা জিয়া আসলে বাংলাদেশে বসে পাকিস্তানের স্বার্থ সংরক্ষণ করছেন। ১৯৭১ সালে জিয়াউর রহমান যেমন মুক্তিযোদ্ধার ছদ্মাবরণে পাকিস্তানের গুপ্তচর ছিলেন, ঠিক তেমনি বেগম জিয়াও পাকিস্তানের গুপ্তচর।

হাছান মাহমুদ জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জামাতা বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী প্রয়াত ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার স্মরণে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ এই স্মরণ সভার আয়োজন করে।সংগঠনের সভাপতি শাহাদাত হোসেন টয়েলের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান, আওয়ামী লীগের উপকমিটির সহসম্পাদক বলরাম পোদ্দার, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলম সাজু প্রমুখ।

হাছান মাহমুদ বলেন, খালেদা জিয়ার এ দেশে রাজনীতি করার অধিকার হারিয়েছেন। তিনি দেশে বসে পাকিস্তানের সাথে সুর মিলিয়ে কথা বলেন। পাকিস্তানের স্বার্থ সংরক্ষণে ব্যস্ত থাকেন। পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের কাছ থেকে বেগম জিয়া নিয়মিত মাসোহারা পান। অন্য কোনো দেশ হলে খালেদা জিয়া এতদিনে রাজনীতি করার যোগ্যতা হারাতেন। তাই আমি সরকারকে অনুরোধ জানাবো অবিলম্বে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে।

ওয়াজেদ মিয়ার স্মরণে হাছান মাহমুদ বলেন, এম এ ওয়াজেদ মিয়া একজন নির্লোভ ও সহজ-সরল মানুষ ছিলেন। ক্ষমতার কাছাকাছি থেকেও একবিন্দু ক্ষমতা ভোগ করেন নাই। কোনোদিন ভোগ করার চিন্তা করেনি তিনি। সমস্ত দায়িত্ব নিয়ে, কঠিন সময়ের মুখোমুখি হয়ে তাঁর প্রিয় সহধর্মিণী শেখ হাসিনা ও ছোট বোনের মতো শেখ রেহানাকে আগলে রেখেছিলেন। নেপথ্যে থেকে সাহস দিয়ে, শেখ হাসিনাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন ওয়াজেদ মিয়া।