Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Premier Bank Ltd

অনেক সুখবর নিয়ে এলেন নাজমুল

স্পোর্টস ডেস্ক | তারিখঃ ১৭.১০.২০১৫

দুবাইয়ে আইসিসি সভা শেষ হয়েছে দিন তিনেক আগে।

সেখানে ২০১৬ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ বাংলাদেশে আয়োজনের সিদ্ধান্ত বহাল রাখার কথা জানানো হয়েছে। নিরাপত্তাহীনতার অজুহাতে অস্ট্রেলিয়া দল পূর্বনির্ধারিত সফর বাতিল করার পরিপ্রেক্ষিতে সেটি নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের বড় অর্জন। আর শঙ্কা পুরোপুরি দূর করে দেওয়ার মতো খবর নিয়ে বিসিবি সভাপতি আসছেন বলে এ কয়েক দিন ধরে অপেক্ষায় দেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা।

পরশু রাতে দেশে ফেরার পর কাল শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। সেখানে একরাশ সুখবরই দিলেন তিনি। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দুঃখ প্রকাশ এবং সম্ভাব্য দ্রুততম সময়ে বাংলাদেশ সফরে আসার প্রতিশ্রুতি, নভেম্বরে জিম্বাবুয়ের সফর নিশ্চিত হওয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের সফরের সবুজ সংকেত, আগের সূচির বাইরেও বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ম্যাচ বাড়ার সম্ভাবনার কথা জানান নাজমুল।

'অস্ট্রেলিয়া ওখানে আনুষ্ঠানিকভাবে সবার সামনে দুঃখ প্রকাশ করেছে। ওরা বলেছে, অবশ্যই এটা পুষিয়ে দেবে এবং আগের চেয়ে বেশি দেবে। সমস্যা হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ার সূচি খুবই ব্যস্ত। ওরা টেস্ট খেলতে আসতে চাইলে ২০১৬ সালের শেষ বা ২০১৭ সালের আগে আসতে পারবে না'- বলেছেন বিসিবি সভাপতি। পূর্বনির্ধারিত সফরে অস্ট্রেলিয়ার কেবল দুটি টেস্ট খেলার কথা ছিল। এবার সঙ্গে বাড়তি ম্যাচ আয়োজনের ইঙ্গিতও মিলল নাজমুলের কথায়, 'অস্ট্রেলিয়া বলেছে, সামনে যখন ভারত বা শ্রীলঙ্কা সফরে আসবে তখন আমাদের সঙ্গে একটা-দুইটা ম্যাচ খেলা যায় কি না, সেটি দেখবে। সেটি টেস্ট না হলেও ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টি খেলবে। ওরা যে আসতে চায় বা আসবে, এটা প্রমাণ করার জন্য।' নিরাপত্তাহীনতার অজুহাতে কোনো দেশ যেন হুট করে সফর বাতিল না করতে পারে, সে জন্য একটি নির্দিষ্ট রূপরেখার প্রয়োজনীয়তার কথা আইসিসি সভায় তুলে ধরেছেন বলে জানান নাজমুল, 'আইসিসিতে আমাদের বক্তব্য ছিল, এ ধরনের সন্ত্রাসী হামলার কথা বলে যদি কোনো একটা দল আসা বাতিল করে এটার ব্যাপারে কী করণীয় আছে। আইসিসির একটা স্ট্যান্ডার্ড সিকিউরিটি প্ল্যান ঠিক করা উচিত। নইলে তো কোথাও খেলা হবে না।'

অস্ট্রেলিয়া না থাকায় হঠাৎই বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সূচিটা ফাঁকা হয়ে গেছে। এই ফাঁকে জিম্বাবুয়েকে সফরে আনার পরিকল্পনার কথা জানা গিয়েছিল আগেই। দুবাইতে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় সে পরিকল্পনা আলোর মুখ দেখার পথে বলে জানান বিসিবি সভাপতি, 'বিপিএলের আগে যে সময় খালি আছে, তখন জিম্বাবুয়ে আসছে। বিপিএলের জন্য ওদের বিপক্ষে আমাদের খেলা শেষ হবে ১৮ বা ১৯ তারিখের ভেতর। জিম্বাবুয়ে তাই আসবে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই। সেখানে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে চার-পাঁচটা ম্যাচ হবে।' এফটিপির বাইরে খেলার সূচি বাড়ানোর আলোচনাও ফলপ্রসূ বলে দাবি তাঁর, 'অনেকের সঙ্গে খেলা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। সূচি দেখে আমাদের তারিখগুলো ঠিক করতে হবে। তাতে মনে হচ্ছে এফটিপিতে যে খেলা ছিল তার চেয়ে আমাদের খেলা বাড়বে এখন।' আর দক্ষিণ আফ্রিকা নারী দলের স্থগিত সফর এ মাসেই শুরু হচ্ছে। এ বিষয়ে ২৮ অক্টোবর থেকে শুরু সফরসূচি এরই মধ্যে পাঠিয়ে দিয়েছে বিসিবি। এবার কেবল আনুষ্ঠানিকভাবে সেটি অনুমোদনের অপেক্ষা, 'দক্ষিণ আফ্রিকা মহিলা ক্রিকেট দলের সফরও স্থগিত হয়েছিল। ওরা নিশ্চিত করেছে যে, ওরা আসছে। নতুন শিডিউল চেয়েছিল ওরা। আমরা গতকাল তা পাঠিয়ে দিয়েছি।'

আর যুব বিশ্বকাপ নিয়ে শঙ্কা দূর হওয়ার খবর তো আইসিসির তরফ থেকে জানানো হয়েছে আগেই। পুরনো সুসংবাদ নিজের মুখে আরেকবার কাল দিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল, 'আইসিসি সভায় আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ ছিল অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। আমরা নিরাপত্তা নিয়ে পুরো ব্যাপারটা ব্যাখ্যা করেছি। আমাদের তরফ থেকে যে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে তাতে সকলেই সন্তুষ্ট। ওই মিটিংয়েই ঠিক হয়েছে যে, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ বাংলাদেশেই হবে। আমাদের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই।'

দুশ্চিন্তা কেটে যাওয়ার মতো এমন অনেকগুলো খবর নিয়েই দেশে ফিরেছেন বিসিবি সভাপতি।