Print

ওয়াইফাই ইন্টারনেট স্পিড, অনলাইন নিরাপত্তা ও ভাইরাস সমস্যার সমাধান কী?

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক | তারিখঃ ১৫.০৫.২০১৬ 

বহু মানুষই ইন্টারনেট ওয়াইফাইয়ের স্পিড সমস্যার সমাধান চান। এ ছাড়া রয়েছে অনলাইনে নিরাপত্তাহীনতা ও ভাইরাস সমস্যা।

এসব সমস্যার সমাধান দেওয়া হলো এ লেখায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ফক্স নিউজ।

প্রশ্ন : আমার মনে হয় প্রতিবেশী আমার ইন্টারনেট সিগন্যাল চুরি করছে। এ কারণে আমার ওয়াইফাইয়ের গতি কমে যাচ্ছে, ব্যান্ডউইথও শেষ হয়ে যাচ্ছে। এ সমস্যার সমাধান কী?

উত্তর : ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার যদি জানায় তারা গতিতে কোনো পরিবর্তন আনেনি তার পরও আপনার ইন্টারনেটের গতি অজ্ঞাত কারণে কমে গেছে। তাহলে প্রতিবেশী কেউ আপনার ওয়াইফাই ইন্টারনেট ব্যবহার করছে কি না, তা লক্ষ করুন। এ জন্য আপনার ইন্টারনেট রাউটারে লগইন করুন। এরপর সেখানে যে গ্যাজেটগুলো সংযুক্ত রয়েছে সেগুলোর তালিকাটি দেখুন। এতে যদি আপনার অপরিচিত কোনো গ্যাজেট থাকে তাহলে বুঝবেন সেটি আপনার ইন্টারনেট অজান্তেই ব্যবহার করছে। আপনি যদি রাউটারের সেটিংগুলো ঠিকঠাক বুঝতে না পারেন তাহলে এর সঙ্গে যে ম্যানুয়াল আছে সেটি দেখুন। এতেই বিস্তারিত লেখা পাওয়া যাবে। রাউটারের ম্যানুয়াল পাওয়া না গেলে অনলাইনে খুঁজে দেখতে পারেন। এ ছাড়া ব্যবহার করা না হলে রাউটারটি বন্ধ রাখুন। শুধু ব্যবহারের সময়েই চালু রাখুন। এতে ইন্টারনেট চোর নিরুৎসাহিত হবে। পাশাপাশি রাউটারের অন্যান্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাও বৃদ্ধি করুন। সংযোগ যেন নিরাপদ প্রটোকলের মাধ্যমে হয় সেটি দেখে নিন। রাউটারের কোনো নিরাপত্তা ত্রুটির কারণে যেন ইন্টারনেট চোর সুযোগ না পায় সে জন্য রাউটারটি ফ্যাক্টরি রিসেট করুন। এ ছাড়া আপনার ডিজিটাল ডিভাইসগুলোর সবচেয়ে কাছাকাছি স্থানে কোনো বাধা ছাড়া রাউটার রাখার চেষ্টা করুন। বাড়িতে বহু ভারী ফার্নিচার থাকলে সেগুলোর আড়ালে নয় বরং সেগুলোর ওপরে রাউটার বসান। এতে বাধামুক্তভাবে রাউটার আপনার ডিভাইসগুলোর সঙ্গে সংযুক্ত হতে পারবে। বাড়ির এক প্রান্তে না রেখে তা বাড়ির মাঝামাঝি স্থানে বসানোই যুক্তিসঙ্গত। আপনার ওয়াইফাই রাউটার থেকে দূরে কোথাও ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রয়োজন হলে এক্সটেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন।

প্রশ্ন : মোবাইলের টেক্সট মেসেজ ব্যবহারের সময় লিখতে খুবই সমস্যা হয়। সমাধান কী?

উত্তর : মোবাইল ফোনের টেক্সট মেসেজ ব্যবহারের সময় অটোকারেক্ট অপশন বন্ধ করে নেবেন। এতে আপনি যা টাইপ করবেন ঠিক তাই আসবে। এ জন্য সেটিং থেকে Language & Keyboard-এ যান। এরপর অটোকারেক্ট অপশন কিংবা Spell Checker খুঁজে বের করুন। এরপর তা বন্ধ করে দিন।

প্রশ্ন : কম্পিউটারের ভাইরাস থেকে রক্ষার জন্য সম্পূর্ণ কম্পিউটার ফরম্যাট করে নিতে হবে কি?

উত্তর : সম্পূর্ণ কম্পিউটারের ফাইলগুলো ফরম্যাট করে দেওয়া হলে তাতে প্রয়োজনীয় ফাইলগুলোও চলে যাবে। এ কারণে তার বদলে ভালো কোনো অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করতে পারেন। কম্পিউটারের ভাইরাস মূলত ইন্টারনেটের বিভিন্ন সাইট থেকে কিংবা বিভিন্ন মাধ্যমে ফাইল শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে আসতে পারে। এ কারণে কম্পিউটারের ভাইরাস থেকে রক্ষার উপায় হিসেবে এ কাজগুলোতে সতর্ক থাকতে হবে। নতুন কম্পিউটার ব্যবহারের শুরুতেই আপনার একটি ভালো অ্যান্টিভাইরাস ইন্সটল করা উচিত। এ ছাড়া ইন্টারনেট সংযোগের সঙ্গে সঙ্গে অ্যাডোবি ফ্ল্যাশ আপডেট করা উচিত। এটি নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি আবার এটি ছাড়া কম্পিউটার চালানোও কঠিন।

প্রশ্ন : শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে তাদের কিভাবে নিরাপদ রাখা যায়?

উত্তর : অনলাইনে শিশু-কিশোর কিংবা তরুণদের বিপজ্জনক আচরণ তাদের বিপদে ফেলতে পারে। এ ক্ষেত্রে অনেকেই স্মার্টফোনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বাড়তি সময় ব্যয় করে। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় তার সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রাখা এবং অনলাইনের বিপদ সম্পর্কে বুঝিয়ে বলা। এতে আশা করা যায় সে অনলাইনের বিপজ্জনক বিষয়গুলো বুঝতে পারবে এবং তা থেকে সতর্ক থাকবে।

প্রশ্ন : অনলাইনে কেনাকাটায় নিরাপদ থাকার উপায় কী? উত্তর : অনলাইনে কেনাকাটায় প্রচুর বিপদ রয়েছে। তাই যেকোনো জিনিস কেনার সময় তা যেন ভালো ও প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান থেকে আসে তা লক্ষ রাখতে হবে। এ ছাড়া অর্থ ট্রান্সফারের সময় ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট বাদ দিয়ে অন্য কোনো উপায় অবলম্বন করা উচিত। নগদ টাকা নিয়ে সন্দেহজনক কোনো স্থানে সরাসরি যাওয়া উচিত নয়। তার বদলে পরিচিত কোনো জনবহুল স্থানে লেনদেন করুন।