Print

বিডিনিউজডেস্ক.কম

তারিখঃ ০৬.০৫.২০১৫

গুগল গ্লাস থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তৈরি স্মার্ট চশমার কল্যাণে স্মার্ট চশমা বিষয়টি এখন আর প্রযুক্তিবিশ্বের কাছে নতুন কিছু নয়।

শীর্ষস্থানীয় অনেক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানই এমন স্মার্ট চশমা তৈরি করতে দিনরাত গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে। নতুন অনেক প্রতিষ্ঠানও এমন স্মার্ট চশমা তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। এসব স্মার্ট চশমাতে অভিনব সব ফিচার সংযুক্তির চেষ্টাও চালিয়ে যাচ্ছে অনেকেই। ঠিক তেমনই এক নতুন ফিচারের কথা জানা গেল মাইক্রোসফটের এক প্যাটেন্ট থেকে। তারা এমন একটি স্মার্ট গ্লাস তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে, যেটি কোনো মানুষের মুখ দেখেই তার মনের মধ্যেকার চলমান অনুভূতিকে শনাক্ত করতে পারবে এবং চশমা পরিধানকারীকে তা জানাতে পারবে। সপ্তাহখানেক হলো এই প্যাটেন্টটি মাইক্রোসফটকে প্রদান করা হলেও মাইক্রোসফট এই প্যাটেন্টের জন্য আবেদন করে রেখেছিল ২০১২ সালে। প্যাটেন্টে আবেদনকৃত ডিভাইসের নাম দেওয়া রয়েছে আ ওয়্যারেবল ইমোশন ডিটেকশন ফিডব্যাক সিস্টেম। এই স্মার্ট চশমা পরিধানকারী চাইলেই কোনো সুনির্দিষ্ট ব্যক্তি বা একদল মানুষের মনের অনুভূতি জানতে চাইতে পারেন স্মার্ট চশমাটির কাছে। সেক্ষেত্রে ওই ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের অগোচরেই স্মার্ট চশমাটি তার বা তাদের মনের অনুভূতিকে শনাক্ত করে পরিধানকারীকে জানিয়ে দিতে পারবে। এই কাজটির জন্য এই স্মার্ট চশমায় থাকছে ডেপথ ক্যামেরা এবং বিশেষ মাইক্রোফোন, যেগুলোর মাধ্যমে ছবি এবং শব্দ সংগ্রহ করবে স্মার্ট চশমাটি। এরপর সংগৃহীত ছবিতে চোখ ও মুখমণ্ডলের বিভিন্ন অংশের নড়াচড়া ও ইশারা এবং কথা বলার ধরণ, শব্দচয়ন প্রভৃতি তথ্যাদি বিশ্লেষণ করে এটি নির্ধারণ করবে ওই ব্যক্তির মনের ভাব। এই ভাব নির্ধারণের জন্য মাইক্রোসফটের বিশাল একটি ডাটাবেজও তৈরি রয়েছে বলে জানা গেছে। প্যাটেন্টপ্রাপ্তির খবর পাওয়া গেলেও মাইক্রোসফট আদৌ এটি তৈরি করবে কি না, সে প্রসঙ্গে সঠিক করে কিছু বলেনি। মাইক্রোসফটের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, মাইক্রোসফট এমন অনেক প্যাটেন্টই লাভ করে থাকে; আর এগুলোর সবই বাণিজ্যিক পণ্যে রূপান্তরিত হয় না।