আজ রবিবার, ২৫ জুন, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** মেহেরপুর সদর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ১১ মামলার এক আসামির মৃত্যু * ক্রেতা সেজে দোকান থেকে মালামাল চুরির অভিযোগে চট্টগ্রামে তিন জন গ্রেপ্তার * দেশের চাহিদার ৯৮ শতাংশ ওষুধ স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হয়: সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী * লন্ডনে হামলাকারী দুইজনের নাম জানিয়েছে পুলিশ * সাবেক প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি লতিফুর রহমান মারা গেছেন

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

জটিলতায় শেয়ারবাজারে আসতে পারছে না আবাসন কোম্পানি

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ২৪.০৪.২০১৬

তালিকাভুক্ত হওয়ার জটিল নিয়মকানুন ও ঘন ঘন নীতি পরিবর্তনের কারণে আবাসন কোম্পানিগুলো শেয়ারবাজারে আসতে পারছে না। ফলে শুধু ইস্টার্ন হাউজিং লিমিটেড (ইএইচএল) ছাড়া আর কোনো আবাসন কোম্পানি শেয়ারবাজারে নেই। এমন পরিস্থিতিতে আবাসন খাতে পরিবর্তন আনতে শেয়ারবাজারে আরও কোম্পানিকে আসার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন।ব্যবসায়ীদের এমন দাবির বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ খাতের কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজার থেকে মূলধন উত্তোলনে সরকারের পক্ষ থেকে সহায়তা দেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেন। তিনি এ বিষয়ে উদ্যোগ নেবেন বলে জানান।

গতকাল শনিবার ঢাকা ক্লাবে 'জাতীয় অর্থনীতিতে আবাসন খাত' শীর্ষক আলোচনা সভায় তারা এ বিষয়ে কথা বলেন। সেন্টার ফর কমিউনিকেশন নেটওয়ার্ক আয়োজিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী। বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ।সেমিনারে এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি মীর নাসির হোসেন, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল মজিদ, রিহ্যাব সহসভাপতি লিয়াকত আলী ভূঁইয়া, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, সেন্টার ফর এনআরবির চেয়ারম্যান এসএম শেকিল চৌধুরীসহ আবাসন খাতের ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেনপরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সবার জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে চায় সরকার। এ জন্য এ খাতের উন্নয়নে উদ্যোক্তাদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে সরকার। তিনি বলেন, এ খাতে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ থাকা দরকার। বিশ্বের অনেক দেশে তা রয়েছে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) বিষয়ে অনেকের অসন্তুষ্টির কথা জানিয়ে তিনি বলেন, যতটা শোনা যায়, ততটা নাও হতে পারে। এর পরও এ সংস্থাকে ঠিক হতে হবে। আবাসন খাতের উন্নয়নে রাজউক ও রিহ্যাবের মধ্যে সমন্বয় থাকা উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।

রিহ্যাব নেতাদের তহবিল প্রস্তাবের বিষয়ে অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০ হাজার কোটি টাকা তহবিল দেওয়া সম্ভব নয়। তিনি মনে করেন, এত টাকা আবাসন খাতে দেওয়া হলে তা নিরাপদ হবে না। এত বিপুল অর্থ ঋণ দিলে তা ফেরত পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেবে। ক্রেতাদের সামর্থ্য বিবেচনায় ফ্ল্যাট তৈরির পরামর্শ দেন তিনি।
এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, আবাসন খাতের নিবন্ধন ব্যয় কমিয়ে ৭ শতাংশ করা উচিত। ভবনের ভূমিকম্প সহনীয় মাত্রার ওপর নির্ভর করে ফ্ল্যাটের দাম নির্ধারণ করার প্রস্তাব দেন তিনি।শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হতে বিভিন্ন জটিলতার কথা তুলে ধরে রিহ্যাব সভাপতি বলেন, তার কোম্পানি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী শেয়ারবাজারে আসতে সব প্রক্রিয়া শেষ করেও ব্যর্থ হয়েছে। নিয়ম পরিবর্তনের কারণে এখন বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে আবেদন করতে বলেছে। এভাবে ঘন ঘন নীতির পরিবর্তন ও নানা জটিলতা তৈরি করায় তার কোম্পানির মতো আরও বেশ কয়েকটি শেয়ারবাজার থেকে মূলধন তুলতে পারছে না বলে তিনি অভিযোগ করেন।

শামসুল আলামিন অর্থপাচার বন্ধে আগামী বাজেটে আবাসন খাতে শর্ত ছাড়াই অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ দাবি করেন। তিনি সরকারিভাবে গৃহ ঋণের ব্যবস্থা করতে বাজেটে ২০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ বরাদ্দের দাবি জানান।সেমিনারে মূল প্রবন্ধে সাংবাদিক জাহিদুজ্জামান ফারুক বলেন, আবাসনকে অগ্রাধিকার খাত হিসেবে চিহ্নিত করে সুযোগ-সুবিধা দেওয়া উচিত। আবাসন ও নির্মাণ খাতের উন্নয়নে জড়িত সংস্থাগুলোর সমন্বয়ে ওয়ান স্টপ সার্ভিস নিশ্চিত করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, বাজেটে এ খাতের জন্য বরাদ্দ এক শতাংশের কম। অথচ নেপালে ১১ শতাংশের বেশি। বরাদ্দ আরও বাড়ানোর প্রস্তাব দেন তিনি।