Print

লিবরা ইনফিউশন্সের মুনাফায় উল্লম্ফন
বিডিনিউজডেস্ক.কম | তারিখঃ ০৩.০২.২০১৬

ব্যাংকের সঙ্গে চলমান ক্ষতিপূরণ মামলার কারণে ২ কোটি ৮৫ লাখ ৪৯ হাজার টাকারও বেশি সুদ ব্যয় হিসাবভুক্ত করেনি লিবরা ইনফিউশন্স লিমিটেড।

এতে চলতি হিসাব বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানিটির মুনাফায় উল্লম্ফন দেখা গেছে। প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি ৭ টাকা ৬৬ পয়সা লোকসান দেখালেও অক্টোবর-ডিসেম্বর সময়ে শেয়ারপ্রতি ৮ টাকা ১৪ পয়সা অনিরীক্ষিত মুনাফা (ইপিএস) দেখিয়েছে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানটি।

স্টক এক্সচেঞ্জ মারফত সম্প্রতি কোম্পানিটি জানিয়েছে, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের কাছে ১৫৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে কোম্পানির দায়ের করা মামলা চলমান। এ কারণে গেল প্রান্তিকে ২ কোটি ৮৫ লাখ ৪৯ হাজার ১৬৮ টাকার সুদ ব্যয় হিসাবভুক্ত করেনি লিবরা ইনফিউশন্স। এতে দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির নিট মুনাফা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১ লাখ ৮৮ হাজার টাকা, ইপিএস ৮ টাকা ১৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩০ পয়সা।হিসাব বছরের প্রথমার্ধে কোম্পানিটির ইপিএস দাঁড়িয়েছে ২ টাকা ৬৯ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ১ টাকা ৬৯ পয়সা।

৩১ ডিসেম্বর কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৭৬ টাকা, এক বছর আগে যা ছিল ১ হাজার ৫৭৩ টাকা।আগের পাঁচ বছরের ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য কোম্পানিটি ২০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়। তখন ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৪৪ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৫ টাকা ৯২ পয়সা।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল লিবরা ইনফিউশন্স শেয়ারের সর্বশেষ দর ৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬০ টাকা ৫০ পয়সা। সারাদিনে ১৪ বারে কোম্পানিটির ৪৭৪টি শেয়ার হাতবদল হয়। গত এক বছরে এর দর ২৭৬ থেকে ৪৪৮ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে।

প্রসঙ্গত, আমদানি বিকল্প স্যালাইন প্রস্তুতের লক্ষ্যে ১৯৮৫ সালে লিবরা ইনফিউশন্স প্রতিষ্ঠিত হয়। কোম্পানিটি ১৯৯৪ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ১০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে বর্তমানে এর পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা। রিজার্ভ ১৯৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা। বর্তমানে কোম্পানির মোট শেয়ারের ৪৮ দশমিক ২৮ শতাংশ এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ৭ দশমিক ২৯ শতাংশ এবং বাকি ৪৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

সর্বশেষ নিরীক্ষিত মুনাফা ও বাজারদরের ভিত্তিতে এ শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাত ১০৪ দশমিক ৮।