আজ বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় * সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

স্পোর্টস ডেস্ক | তারিখঃ ০৭.০৯.২০১৭

চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিনে প্রথম ইনিংসে ৭২ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করছে বাংলাদেশ।

তবে শুরুটা ভালো হলো না টাইগারদের। শুরুতেই পাচ উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে মুশফিক বাহিনী।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ের শুরুতেই সাজঘরে ফিরে গেলেন বাংলাদেশি ওপেনার সৌম্য সরকার। অসি পেসার প্যাট কামিন্সের বলে ফার্স্ট স্লিপে রেনশর হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় হন সৌম্য। আউট হওয়ার আগে ২০ বলে ৯ রান করেছেন বাঁহাতি এ ওপেনার।

বেশিদূর যেতে পারেননি তামিমও। নাথান নায়নের বলে ব্যক্তিগত ১২ রান করে সাজঘরে ফেরেন। তামিমের পর সাজঘরে ফিরতে দেরি করেননি ইমরুল কায়েস। ইনিংসের ১৭তম ওভারে নাথান লায়নের করা প্রথম বলেই এক্সট্রা কাভারে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের হাতে ক্যাচ তুলে দেন ইমরুল কায়েস। জায়গায় দাঁড়িয়েই বলটি তালুবন্দি করেন ম্যাক্সওয়েল। আউট হওয়ার আগে ৩৫ বলে ১৫ রান করেন ইমরুল।

বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিলে প্রতিরোধ গড়তে পারেননি সাকিব আল হাসানও। ব্যক্তিগত ২ রানে সাজঘরে ফিরেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সাকিবের পর নাসিরও দ্রুত আউট হয়ে যান। ১৮ বল খেলে ব্যক্তিগত ৫ রান করেন।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫উইকেট হারিয়ে ৩৭ রান। মুশফিক ১ ও সাব্বির শূন্য রানে ব্যাট করছেন। এর আগে, চতুর্থ দিনের শুরুতেই অলআউট হয়ে যায় সফরকারী অস্ট্রেলিয়া। দিনের দ্বিতীয় ওভারে মোস্তাফিদের পঞ্চম বলেই নাথান লায়নকে সাজঘরে ফেরান। প্রথম ইনিংসে তাদের সংগ্রহ ৩৭৭ রান। ফলে প্রথম ইনিংসে ৭২ রানের লিড নিয়ে এগিয়ে রয়েছে স্মিথ বাহিনী।

এর আগে, তৃতীয় দিনের শুরুতে ৮০ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে অস্ট্রেলিয়া দিন শেষে প্রথম ইনিংসে ৭২ রানের লিড নিয়েছে। সফরকারীদের হাতে আছে এক উইকেট। বুধবার বৃষ্টিবিঘ্নিত দিনে খেলা হয়েছে ৫৪ ওভার। আরো ১৩ ওভার খেলা হওয়ার কথা থাকলেও আলোর স্বল্পতায় তা হয়নি। দিন শেষে অস্ট্রেলিয়ার রান ৯ উইকেটে ৩৭৭।

বাংলাদেশের পক্ষে মোস্তাফিজ ৪টি, মেহেদি হাসান মিরাজ ৩টি, তাইজুল ইসলাম ১টি ও সাকিব আল হাসান ১টি উইকেট নিয়েছেন। বুধবার সকালে ভারী বৃষ্টির কারণে তিন ঘণ্টারও বেশি সময় খেলা বন্ধ ছিল। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় প্রথম সেশেনের খেলা ভেস্তে যায়। পরে দুপুর সোয়া একটার দিকে মাঠে নামে অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় দিনের (মঙ্গলবার) দুই উইকেটে ২২৫ রান (৬৪ ওভার) নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে সফরকারীরা।

বাংলাদেশের জন্য বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়ায় ওয়ার্নার ও হ্যান্ডসকম্ব জুটি। অবশেষে তাদের ১৫২ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব। দুর্দান্ত এক থ্রোতে ৮২ রান করা পিটার হ্যান্ডসকম্বকে রান আউট করেন তিনি।

এরপর বাংলাদেশকে ব্রেকথ্রু এনে দেন টাইগার পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। ১২৩ রান করা ডেভিড ওয়ার্নারকে আউট করেন তিনি। লেগ গালিতে ইমরুলের হাতে ধরা পড়ে ওয়ার্নার। এর আগে গতকাল অসি ওপেনার রেনশোর উইকেট নেন তিনি। এ আউটের মধ্য দিয়ে ওয়ার্নার-ম্যাক্সওয়েলের ৪৮ রানের জুটিটি ভাঙে। মোস্তাফিজের পথ ধরেন মিরাজ। উইকেটে সেট হওয়ার আগেই হিলটন কার্টরাইটকে সাজঘরে ফেরালেন তিনি। ব্যক্তিগত ১৮ রানের মাথায় মিরাজের বলে স্লিপে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ দেন কার্টরাইট। দলীয় ৩৪২ রানের মাথায় মোস্তাফিজের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফেরেন ম্যাথু ওয়েড। বাঁচার জন্য রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু কাজ হয়নি। ব্যক্তিগত ৮ রান করে আউট হন তিনি।

এরপর দলীয় ৩৪৬ রানের মাথায় গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। মিরাজের বলে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ম্যাক্সওয়েল। তার ব্যাট থেকে এসেছে ৩৮টি রান। ব্যাট করতে নেমে সুবিধা করতে পারেননি প্যাট কামিন্স। ব্যক্তিগত ৪ রানের মাথায় মিরাজের বলে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়েন তিনি।

বল হাতে সাকিব ২৯ ওভার করেছিলেন। ৭৮ রান দিয়ে উইকেট শূন্য ছিলেন তিনি। অবশেষে ৩০তম ওভারে এসে প্রথম উইকেটের দেখা পান আগের টেস্টে দশ উইকেট শিকার করা সাকিব। তার প্রথম শিকারে পরিণত হন অ্যাস্টন অ্যাগার। তাকে সরাসরি বোল্ড করেন সাকিব। দলীয় ৩৭৬ রানে ব্যক্তিগত ২২ রানে আউট হন অ্যাগার। তার এই আউটে স্বস্তি পান সৌম্য সরকার। কারণ সাকিবের এই ওভারে (১১১তম) স্লিপে অ্যাগারের সহজ ক্যাচ ফেলে দেন তিনি।

সবকটি উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের ৩০৫ রানের জবাবে মঙ্গলবার ব্যাটিংয়ে নামে অস্ট্রেলিয়া। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় অজিরা। বাংলাদেশের পক্ষে ব্রেকথ্রু এনে দেন মোস্তাফিজুর রহমান। নিজের প্রথম ওভার করতে এসে তৃতীয় বলেই তুলে নেন অসি ওপেনার রেনশোর উইকেট। এরপর অস্ট্রেলিয়ার হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথ। দীর্ঘ সময় উইকেটের দেখা নেই। অবশেষে উইকেটের খরা কাটালেন তাইজুল।

ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথের ৯৩ রানের জুটি ভাঙেন তাইজুল ইসলাম। নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই অসি অধিনায়ক স্মিথকে সরাসরি বোল্ড করে সাজঘরে পাঠান তিনি। আউট হওয়ার আগে ৯৪ বলে ৫৮ রান করেন স্মিথ।