Monday 23rd of January 2017

সদ্য প্রাপ্তঃ

****ছাত্রলীগের ঢাকা কলেজ শাখার আহ্বায়কসহ ১৯ নেতাকর্মীকে বহিষ্কার *তরুণীর মামলায় গ্রেফতার ক্রিকেটার আরাফাত সানি * শান্তি কামনায় শেষ হলো ৫২তম বিশ্ব ইজতেমা***

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

ভোলায় ইজতেমা শুরু আগামীকাল

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৪.০১.২০১৭

জেলায় আগামীকাল বৃহস্পতিবার (০৫ জানুয়ারী) থেকে শুরু হচ্ছে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় সম্মিলন তিন দিনব্যাপী ইজতেমা।

শহরতলীর কমরউদ্দি এলাকায় প্রায় শত একর জমির উপর এই প্রথম তাবলীগ জামায়াতের আয়োজনে ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছে। এবারের ইস্তেমায় প্রায় ৪ লাখ মানুষের সমাগম হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বর্তমানে ইজতেমার ময়দানে চলছে শেষ সময়ের কাজ। বৃহস্পতিবার আসরের নামাজের পর বয়ানের মাধ্যমে ইস্তেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। স্থানীয় তাবলীগ জামায়াত সূত্রে জানা যায়, টঙ্গির তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার আসরে সকল জেলার স্থান সংকুলান না হওয়ায় ৩২ টি জেলার বাসিন্দাদের নিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। বাকি ৩২টি জেলাকে নিজ এলাকায় ইজতেমা করার জন্য বলা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় আগামী ৫, ৬ ও ৭ জানুয়ারি তিন দিন ভোলায় ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছে। এখানে থাইল্যন্ড, ভারত, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের মেহমানরা থাকবেন। স্থানীয়, ঢাকা ও বিদেশি অতিথিরা বয়ান করবেন ময়দানে। দৈনিক হাজার হাজার মানুষ ইহকাল ও পরকালে মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় এখানে সেচ্ছাশ্রমে কাজ করছেন। শনিবার আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে ইজতেমার শেষ হবে।

ইজতেমার মাঠের দায়িত্বে থাকা তাবলীগের মুরুব্বী মো: মোকাম্মেল হক জানান, ময়দানে ৩০০ পয়েন্টের প্যান্ডেল নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতি পয়েন্ট ১৬ খোপ। ১ খোপ ১৮ স্কয়ার ফিট। সেই হিসাবে মাঠে ১ লাখ ৩০ হাজার মানুষ থাকতে পারবে। প্রায় পৌনে ২ লাখ মানুষ নামাজ আদায় করতে পারবে। ২ লাখেরও বেশি মানুষ বয়ান শুনতে পারবে। তিনি বলেন, আর আখেরী মোনাজাতের দিন ৩ লাখেরও বেশি মানুষ উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া ময়দানের বাইরে আশ-পাশ মিলিয়ে শেষ দিনে ৪ লাখের বেশি মানুষের সমাগম ঘটবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। ইজতেমার ময়দান ঘুরে দেখা গেছে, শেষ সময়ের কর্ম ব্যস্ততা মুসুিল্লদের। ময়দানে ২ হাজার অস্থায়ী ল্যাট্রিন নির্মাণ করা হয়েছে। প্রসাবখানা ১ হাজার, ৫৫ শ্যালো টিউবয়েল, ২ হাজার পানির টেপ, ৩ হাজার মানুষের একসাথে ওজু করার ব্যবস্থা রয়েছে। মাইক লাগানো হয়েছে ৬০টি। এছাড়া নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ২০০ কেভি ২টি জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে। মুসুিল্লদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকে ২টি মেডিকেল টিম সার্বক্ষনকি প্রস্তুত রয়েছে। আরো রয়েছে একটি আ্যম্বুলেন্স, ৩ বেডের বিছানাসহ সবধরনের ওষুধপত্র। এদিকে ইজতেমার ময়দানে আগত মুসুিল্লদের সার্বক্ষনিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে জেলা পুলিশ। অস্থায়ী পুলিশ ব্যরাক ও চেকপোষ্ট স্থাপন করা হয়েছে। সন্দেহভাজনদের করা হচ্ছে তল্লাশি।