Print

বিডিনিউজডেস্ক.কম   
তারিখঃ ৩০.০৫.২০১৫   

টাংগাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের মানব পাচারের খপ্পরে পড়ে বিগত ৯ মাস ধরে ভারতের জেলে বন্ধী রয়েছে আট যুবক।

এই যুবকেরা লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে পাড়ি জমাতে চেয়েছিলেন মালদ্বীপে।
আর নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তনের মাধ্যমে একটু উন্নয়ন ঘটাতে চেয়েছিলেন পরিবারের সদস্যদের। কিন্তু মানব পাচার কারিদের খপ্পরে পড়ে এখন প্রাণে বেঁচে থাকায় হয়ে পড়েছে কষ্টকর।
খোজনিয়ে জানা যায় -গত দেড় বছর আগে মালদ্বীপে পাঠানোর কথা বলে মানব পাচার কারীরা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার যুবকদের কাছ থেকে দুইলাখ টাকা করে দালালরা গ্রহন করেন। এই পাচার হওয়া আট যুবকেরা হলেন -মির্জাপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের থলপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলাম(৪৫)মোহাম্মদ আলী(৪০) ফতেপুর গ্রামের রিপন মিয়া(৩০) সবুজ মিয়া(২৬) বাবুল সিকদার (৩৫)জয়নাল উদ্দিন(৪৩) এবং পার্শ্ববর্তী হিলড়া আদাবাড়ি গ্রামের সোহেল মিয়া(২৬)ও মহেড়া গ্রামের জুলহাস মিয়া(২৬)।
এই আট যুবকের কাছ থেকে দালালরা টাকা নেওয়ার পড় বিদেশে পাঠাতে দেরি করাই ভুক্তবগিরা চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এভাবে অনেক দিন কেটে গেলে এক সময় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বাদের মাধ্যমে বিষয়টি জানাজানি হলে গত বছর ১৪ আগষ্ট ২০১৪ সালে তাদেরকে সীমান্ত পথে ভারত দিয়ে মালদ্বীপে পাঠানোর ব্যবস্হা করা হয়।
কিন্তু অবৈধ পথে পবেশের দায়ে তাদেরকে ভারতীয় বি এস এফ জেল প্রধান করেন। ভুক্তবগি পরিবারের দাবি সরকার ও প্রশাসন যেন তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত আনে।