Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Premier Bank Ltd

মালয়েশিয়ায় যাওয়ার বেপারে এখনই অর্থ না লেনদেনে মন্ত্রির পরামর্শ

জাতীয় ডেস্ক | তারিখঃ ১১.০৮.২০১৫

মালয়েশিয়ায় বিটুবি (বেসরকারি উদ্যোগে) কর্মী পাঠানোর বিষয়টি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে আছে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি।

চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত মালয়েশিয়া যাওয়ার বিষয়ে কারো সঙ্গে আর্থিক লেনদেন থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সকালে মালয়েশিয়ার একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রী এই পরামর্শ দেন।মালয়েশিয়ার একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আজ মঙ্গলবার সকালে বৈঠক করেছেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি। বিটুবি হলো বিজনেস টু বিজনেস অর্থাৎ দুই পক্ষের ব্যবসায়ী পর্যায়ে। বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার ব্যাবসায়ীদের মাধ্যমে কর্মী পাঠানো বিষয়টি কয়েকদিন ধরেই আলোচনায় আছে। তবে, এই বিষয়ে মালয়েশিয়ার ঘোষণার পর, এই প্রথম একটি প্রতিনিধিদল এসেছে বাংলাদেশে। প্রতিনিধি দলে আছে দেশটির ইমিগ্রেশন বিভাগের মহাপরিচালকের নেতৃত্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চার সদস্য। প্রতিনিধিদলে মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কেউ নেই।  তিন বছরে প্রায় ১৫ লাখ কর্মী নেওয়ার আগ্রহ দেখিয়েছে মালয়েশিয়া। তবে বাংলাদেশ থেকে কত কর্মী নেওয়া হবে সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বৈঠক শেষে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সবকিছু চূড়ান্ত হলে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেই জানানো হবে। তার আগ পর্যন্ত মালয়েশিয়া যাওয়ার বিষয়ে কাউকে কোনো রকমের টাকা-পয়সা দেওয়া যাবে না।  প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী আরো বলেন, ‘কোনো লোক যদি বলে এই মুহূর্তে নিয়ে যাবে তা সঠিক নয়। এ ব্যাপারে দেশবাসীর প্রতি অনুরোধ থাকবে আমাদের ক্লায়েন্ট ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে যেন লেনদেন না করে। লেনদেন করলে ঠকে যাবে এবং পরবর্তী সময়ে জটিলতা সৃষ্টি হবে। এখনো ঠিক হয়নি কোন পর্যায়ে কত লোক নিয়ে যাবে। এখনো বিষয়টি প্রাথমিক পর্যায়ে আছে।’ মন্ত্রী আরো বলেন, ইচ্ছুক কর্মীদের কাছ থেকে কেউ অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  দুই দেশের নির্দিষ্ট কয়েকজন ব্যবসায়ী বা সিন্ডিকেটের মধ্যে এবারের কর্মী পাঠানোর সীমাবদ্ধ থাকবে কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী জানান, এটা তিনি হতে দেবেন না। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেন, ‘মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক কোনো কর্মী যেন প্রতারিত না হন সে বিষয়ে তাঁরা চোখ-কান খোলা রেখেছেন। আর বিটুবি পদ্ধতিতে কর্মী প্রেরণ শুরু হলেও জিটুজি বা সরাসরি সরকারের মাধ্যমে কর্মী প্রেরণের বিষয়টি আপাতত বন্ধ হচ্ছে না।’