Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

Premier Bank Ltd

নূর হোসেনের বিচারকার্য থেকে সড়ে দাঁড়ানোর আবেদন

জাতীয় ডেস্ক | তারিখঃ  ২৫.০৮.২০১৫

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে এর বিচারকার্য থেকে সড়ে দাঁড়ানোর আবেদন জানাল।

সোমবার সকালে বারাসত জেলা জজ আদালতের বিচারক প্রবীর কুমার মিশ্রের এজলাসে সরকারের এই আবেদন জমা দেন রাজ্য সরকারের আইনজীবি শান্তময় বসু। বিচারক আবেদন গ্রহণ করে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর এই আবদেনের পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করেন। নূর হোসেনের মামলার আইনজীবী অনুপ ঘোষ জানিয়েছেন, সোমবার এই মামলায় নুরসহ বাকি দুই অভিযুক্তের চার্জগঠনের দিন ধার্য ছিলো। কিন্তু আদালত শুরু হওয়ার পরপরই সরকার পক্ষের আইনজীবির এমন আবেদনের অর্থ হচ্ছে তারা আর নূর হোসনের মামলাটি চালাতে চাইছে না। এর কারণ হিসাবে তার ব্যাখা, যেহেতু ইন্টারপোলের রের্ড কর্ণারে নূরের বিরুদ্ধে নোটিশ রয়েছে তাই তাকে হয়তো বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। সে কারণেই রাজ্য সরকার তাদের এই অবস্থান কোর্টকে জানাল। এ ব্যাপারে সরকার পক্ষের আইনজীবি শান্তময় বসু জানান, ৩২১ ধারায় মামলাটির প্রত্যাহার চেয়েই আবেদন করা হয়েছে। মহামান্য কোর্ট ২১ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন। এদিকে দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, নুর হোসেন বর্তমানে দমদম সেন্ট্রাল জেলে বন্দি রয়েছেন। নুরের বিরুদ্ধে ভারতে অনুপ্রবেশের মামলা থাকায় তাঁকে আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁকে বাংলাদেশের হাতে প্রত্যার্পন করা যাচ্ছে না। এই আইনি জটিলতা দূর করতেই কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিশেষবার্তা এসে পৌছে রাজ্য সরকারের কাছে। সেই বার্তা পেয়েই রাজ্য সরকারের এই অবস্থা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজ্য সরকারের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের একজন কর্মকর্তা জানান, গত সপ্তাহেই নূরের বিষয়ে দিল্লি থেকে একটি দিকনিদের্শনা পৌঁছায়। তারপরই বিষয়টি নিয়ে বিধাননগর কমিশনারেট এর পুলিশের সঙ্গে বৈঠক করেন রাজ্য স্বারাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা। এমন কি ইন্টাপোলের নোডাল সিআইডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাররা ওই বৈঠকে ছিলেন। সব কিছু ঠিকঠাক চললে এই বছরেই নূর হোসেনকে ফেরত দেওয়া হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১৩ জুন কলকাতার অদূরের বাগুইআটি থানার কৈখালির একটি আবাসনে ওহাদুজ্জামান শামিম এবং খান সুমন নামে দুজন সঙ্গীসহ গ্রেপ্তার হন নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের মামলা প্রধান অভিযুক্ত ওয়ার্ড কমিশনার নূর হোসেন।