Saturday 25th of March 2017

সদ্য প্রাপ্তঃ

***আইপিএলকে বাতিল করে দিল বিসিসিআই!***

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

‘আমার ভোট আমি দেব তোমার ভোটও আমি দেব’

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ২১.০৪.২০১৬

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলের প্রার্থী এবং ভোটারদের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

এ জন্য তারা সরকারি দলের প্রার্থী এবং তাঁদের লোকজনকে দায়ী করেছে। গতকাল বুধবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন ফটিকছড়ি উপজেলা বিএনপির নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মোহাম্মদ সরওয়ার আলমগীর। তিনি অভিযোগ করেন, ফটিকছড়িতে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সরকারদলীয় প্রার্থীদের লোকজন মোটর শোভাযাত্রা সহকারে ‘আমার ভোট আমি দেব, তোমার ভোটও আমি দেব’ প্রচারণা চালাচ্ছে।

বিএনপির প্রার্থীদের প্রচারণায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ এনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, চাপ প্রয়োগ করে চারটি ইউনিয়নে ইতিমধ্যে সরকারি দলের প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি ১১টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে সাজানো নাটকের মাধ্যমে। বিভিন্ন ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীদের পোস্টার টাঙাতে বাধা দেওয়া হচ্ছে।

তবে বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে ফটিকছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফতাব উদ্দিন চৌধুরী গতকাল রাতে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাঁকে দেব’ এটি আমাদের দলের স্লোগান। আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় এ কথাই বলা হচ্ছে। বিএনপি যে অভিযোগ করেছে তা মিথ্যা।

সরওয়ার আলমগীর অভিযোগ করেন, আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ সত্ত্বেও নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। এ অবস্থায় অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে কি না, তা নিয়ে তাঁরা সন্দিহান। তিনি অভিযোগ করেন, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর দাঁতমারা ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীর গণসংযোগে বাধা দিয়েছে সরকারদলীয় প্রার্থীর লোকজন।

সংবাদ সম্মেলনে উত্তর জেলা বিএনপির সদস্যসচিব কাজী আবদুল্লাহ আল হাসান এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ‘দু-এক দিনের মধ্যেই নির্বাচন বয়কটের মতো কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে পারি আমরা।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি মির্জা মোহাম্মদ আকবর, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক সহসভাপতি নাজিম উদ্দিন প্রমুখ।