আজ বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** বনানীতে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাতসহ পাঁচজনের বিচার শুরু * ভিয়েতনাম থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন চালের প্রথম চালান নিয়ে বন্দরে ভিড়েছে জাহাজ * লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে সংঘর্ষে চালক নিহত * তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা * সীতাকুণ্ডে নয় শিশুর মৃত্যু ও ৪৬ জনের অসুস্থতার কারণ এখনও শনাক্ত করা যায়নি * চিকিৎসকরা বলছেন, ত্রিপুরা পাড়ার অসুস্থ শিশুরা মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে * ৫৬ ইউনিয়ন পরিষদ এবং একটি করে পৌরসভা ও জেলা পরিষদের কয়েকটি ওয়ার্ডে ভোট চলছে * চট্টগ্রামে ইয়াবা ও চোলাই মদসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর * দুর্নীতির দায়ে ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলার সাড়ে নয় বছরের কারাদণ্ড

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

কাপ্তাই হ্রদে মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১০.০৫.২০১৬

কাপ্তাই হ্রদে মাছের বংশবৃদ্ধি, অবমুক্ত করা পোনার বিস্তার ও মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিতকরণে প্রতিবছরই তিন মাস মাছ শিকার বন্ধ রাখা হয়।

এবারও ১২ মে থেকে হ্রদের মাছ আহরণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন। সোমবার রাঙামাটি জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে মৎস্য আহরণ বিষয়ক এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভাপতির বক্তব্যে আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বলেন, এই হ্রদের ওপর নির্ভর করে অনেক জীবন চলে। তাই সবার কথাই আমাদের ভাবতে হবে। মাছ আহরণ বন্ধ থাকাকালে প্রত্যেক জেলে যাতে রিলিফ কার্ড সঠিকভাবে পান, সেদিকে নজর রাখতে হবে। হ্রদে মাছ ধরা বন্ধে নৌ পুলিশ কাজ করবে বলেও তিনি জানান।সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, হ্রদের মাছ আহরণ বন্ধের সময়ে যদি কারও অবৈধ জাল পাওয়া যায় তবে তা সঙ্গে সঙ্গেই নষ্ট করে ফেলা হবে। এছাড়া হ্রদে জাঁক দিয়ে মাছ আহরণ করা যাবে না। এভাবে মাছ আহরণ করতে দেখা গেলেও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানা গেছে, কাপ্তাই হ্রদে মাছ আহরণ এবছর ১২ মে থেকে তিন মাস বন্ধ থাকবে। খোলার বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। এছাড়া প্রতিবছর পয়লা মে থেকে মাছ ধরা বন্ধ করে ১ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধ রাখা হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের রাঙামাটির শাখার ব্যবস্থাপক ও প্রজেক্ট ডিরেক্টর কমান্ডার মাইনুল ইসলাম (সি) বিএন, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম, জেলা মৎস্য বৈজ্ঞানিক মো. আব্দুল বাশারসহ জেলার বিভিন্ন মৎস্য ব্যবসায়ীরা।