আজ মঙ্গলবার, ২৩ মে, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে সফরের আমন্ত্রণ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর * সাত দফা দাবিতে উত্তরবঙ্গে পণ্যবাহী যানবাহনের ধর্মঘট আরও ২৪ ঘণ্টা বাড়ছে * যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় বাস্তুহারা লীগের এক নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, একজন আটক * সিনেটের ৩৫ জন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে ভোট দিচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা * সুন্দরবনে মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে বাঘের থাবায় মৌয়ালের মৃত্যু * সৌদি আরবে শেখ হাসিনা ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে কক্সবাজারে মানববন্ধন

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১৫.০৫.২০১৬

কক্সবাজারের টেকনাফে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ভুট্টো বাহিনী কর্তৃক টেলিভিশনের ৫ সাংবাদিককে কুপিয়ে আহত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন কক্সবাজারের সাংবাদিক মহল।

আজ রবিবার বেলা ১১টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত এই মানববন্ধনে রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও সুশিল সমাজ হ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন। এ সময় বক্তারা হামলার তীব্র প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে অপরাধীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। অন্যথায় তারা দেশব্যাপী বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেন। এ ছাড়াও আগামী মঙ্গলবার আবারো বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলের কর্মসূচি দেন সাংবাদিক নেতারা। 

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ঘটনার পর থেকে পুলিশের ভূমিকা প্রমাণ করছে পুলিশ ইয়াবা ব্যবসায়ীদের পক্ষে। এ সময় তারা কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবং টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবিলম্বে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবি জানান।   প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকালে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজির পাড়ায় ইয়াবা উদ্ধারের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে স্থানীয় এমপি আবদুর রহমান বদির আত্মীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী নুরুল হক ভূট্টোর নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত টেলিভিশনের ৫ সাংবাদিকের ওপর হামলা চালায়। হামলায় আহত হন সময় টেলিভিশনের কক্সবাজারস্থ স্টাফ রিপোর্টার সুজাউদ্দিন রুবেল ও তার ক্যামেরাপার্সন আবুল ফরাজ, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি তৌফিকুল ইসলাম লিপু ও ক্যামেরাপার্সন শরীফ উদ্দিন, একাত্তর টেলিভিশনের ক্যামেরাপার্সন বাবু দাশ। এ সময় হামলাকারিরা সাংবাদিকদের বহন করা গাড়ি, ক্যামেরা ও ল্যাপটপ ভাঙচুর এবং লুট করে। পরে এ ঘটনায় টেকনাফ থানায় ১৯ জন ইয়াবা পাচারকারীসহ অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়।