Print

ফাঁসির রায়ে নারায়ণগঞ্জ আদালতে বিজয় মিছিল

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১৬.০১.২০১৭

নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলায় ২৬ জনের ফাঁসি হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নিহতদের স্বজন ও তাদের আইজনীবীরা।

রায় ঘোষণার পরপরই বিজয় মিছিল বের করে বাদীপক্ষের আইনজীবীরা।চাঞ্চল্যকর এই মামলার রায় দিতে সোমবার সকাল ১০টায় আদালতের এসলাসে বসেন বিচারক এনায়েত হোসেন। এ সময় আদালতের কাঠগড়ায় ২৩ আসামিকে হাজির করা হয়। ঘড়ির কাঁটা যখন ১০টা ৬ মিনিট ঠিক তখনই ২৬ জনের ফাঁসির রায় ঘোষণা করেন বিচারক। রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে আদালত প্রাঙ্গণে আনন্দ বিজয় মিছিল বের করে বাদীপক্ষের আইজীবীরা। তাদের সঙ্গে নিহতদের অনেক স্বজনও অংশ নেন।

রায়ের পর তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় বাদীপক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘তারা যে অপরাধ করেছিল সেজন্য আমরা সব আসামির মৃত্যুদণ্ড আশা করেছিলাম। কিন্তু ২৬ জনের ফাঁসির রায় দেয়া হয়েছে। সবাইকে ফাঁসি দিলে আমরা আরও খুশি হতাম। তারপরেও যে রায় দেয়া হয়েছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট।’ এ সময় তিনি দ্রুত রায় বাস্তবায়নের দাবি জানান।


রায় শোনার পর নিহত নাসিকের সাবেক প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি বলেন, ‘এই রায়ে আমি সন্তুষ্ট। এজন্য আমি সরকার ও বিচারকদের ধন্যবাদ জানাই।’ তিনি বলেন, অনেকদিন ধরে আজকের দিনটির জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। আমি চাই দ্রুত যেন রায় কার্যকর করা হয়। তাহলেই শান্তি পাব।’বিউটি বলেন, ‘আমাদের ওপর অনেক চাপ ছিল। কিন্তু আমরা আইনি লড়াইয়ে লড়েছি। ২৬ জনের ফাঁসি হওয়ায় আমরা খুশি। তবে সব আসামির ফাঁসি হলে আরও খুশি হতাম। আমরা চাই উচ্চ আদালতেও এই রায় বহাল থাকবে এবং অতিসত্ত্বর তাদের ফাঁসি কার্যকর হবে।’

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় নজরুলের শ্বশুর শহীদ চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা এই রায়ে আংশিক সন্তুষ্ট।’ তিনি বলেন, মামলার এজাহারভুক্ত অর্থদাতা ও পরিকল্পনাকারী চারজনকে মামলা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। ‘এরা যদি আসামি থাকতো তাহলে এদেরও ফাঁসি হতো। তাহলেই আমরা পরিপূর্ণ সন্তুষ্ট হতাম।’প্রায় আড়াই বছর পর চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের রায় ঘোষণা করে রাষ্ট্রপক্ষ। রায়ে নূর হোসেন-তারেক সাঈদসহ ২৬ জনের ফাঁসির রায় দেন আদালত। এছাড়া নয় আসামির বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়।