Monday 1st of May 2017

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** রোজা সামনে রেখে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু ১৫ মে; ২৮১১ জন পরিবেশক ও ১৮৫ ট্রাকের মাধ্যমে বিক্রি করা হবে চিনি * হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: সুনামগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী * ফরিদপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে প্রতিপক্ষের হামলা, সংঘর্ষে নিহত ১ * অর্থ মন্ত্রণালয়ের ‘ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান’ বিভাগের নাম এখন শুধু ‘আর্থিক প্রতিষ্ঠান’* সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় এক ইউপি চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার * নিউ ইয়র্কে মুক্তিযোদ্ধা ও আবৃত্তিশিল্পী কাজী আরিফের জানাজা, মরদেহ দেশে আসবে মঙ্গলবার

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

এক সপ্তাহ ধরে বন্ধ মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ২৮.০৪.২০১৬

মাদারীপুর সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত এক চিকিৎসককে মারধরের অভিযোগে বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) সপ্তম দিনের মত ধর্মঘট চলছে।

অভিযুক্তদের বিচার দাবিতে গত শুক্রবার সকাল থেকে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন চিকিৎসক-কর্মচারীরা। তবে বুধবার থেকে ধর্মঘট কিছুটা শিথিল হওয়ায় হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়া রোগীরা ফেরত আসছেন। তবে এখনও অর্ধেকের বেশি শয্যা খালি রয়েছে।এর আগে একটানা চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় রোগীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। একপর্যায়ে পুরো হাসপাতাল খালি হয়ে যায়। চিকিৎসকদের দাবি, ঘটনার সঙ্গে জড়িতকে গ্রেফতার ও সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার জন্য হাসপাতাল চত্বরে একটি পুলিশ বক্স স্থাপন করতে হবে।
এদিকে, শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) সকালে এক জরুরি বৈঠকে বসছেন হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা। সেখানে উপস্থিত থাকবেন ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। মন্ত্রীর হস্তক্ষেপে শুক্রবার ধর্মঘট প্রত্যাহার হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।উল্লেখ্য, মাদারীপুর সদর হাসপাতালে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে তার আত্মীয়-স্বজনরা জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক খন্দকার মাঈনুল আহসানকে মারধর ও লাঞ্ছিত করে বলে অভিযোগ চিকিৎসকদের। ধর্মঘট ছাড়াও চিকিৎসককে মারধর ও লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে কালোব্যাজ ধারণ করে মানববন্ধন করেন চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও নার্সরা।মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার শশাঙ্ক চন্দ্র ঘোষ জানান, এক সময় ইনডোর ও আউটডোর স্বাস্থ্যসেবা বন্ধ থাকলেও এখন ইনডোর স্বাস্থ্যসেবা চালু করা হয়েছে। তবে গুরুতর অসুস্থ রোগীর জন্য শুরু থেকেই জরুরি বিভাগে চিকিৎসা সেবা চালু ছিল।