আজ বুধবার, ২৪ মে, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে সফরের আমন্ত্রণ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর * সাত দফা দাবিতে উত্তরবঙ্গে পণ্যবাহী যানবাহনের ধর্মঘট আরও ২৪ ঘণ্টা বাড়ছে * যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় বাস্তুহারা লীগের এক নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, একজন আটক * সিনেটের ৩৫ জন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে ভোট দিচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা * সুন্দরবনে মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে বাঘের থাবায় মৌয়ালের মৃত্যু * সৌদি আরবে শেখ হাসিনা ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

গাজীপুরে কারখানা বন্ধ, শ্রমিকদের বিক্ষোভ

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০২.০৫.২০১৬

গাজীপুরের টঙ্গীতে মার্স স্টিচ লিমিটেড নামক একটি পোশাক কারখানা বন্ধ ঘোষণা করেছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

তবে মজুরি পরিশোধ না করে এ ঘোষণা দেওয়ায় কারখানায় ভাংচুর ও বিক্ষোভ করেছেন শ্রমিকরা।

পুলিশ জানায়, পূর্বঘোষণা ছাড়াই গতকাল রোববার বিকেলে টঙ্গীর আউচপাড়া এলাকায় শাহাদাত প্লাজায় অবস্থিত মার্স স্টিচ লিমিটেড পোশাক কারখানাটি বন্ধ করা হয়েছে। আজ সকালে কারখানা বন্ধের বিষয়ে একটি নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছে কারখানা কর্তৃপক্ষ। শ্রমিকরা এসে এ নোটিশ দেখে বিক্ষোভ ও ভাংচুর শুরু করেন। শ্রমিকদের অভিযোগ, তাঁদের তিন মাসের বেতন বকেয়া পড়েছে।

কোম্পানিটির চেয়ারম্যান আজিজ আহম্মেদ ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত এক নোটিশে বলা হয়, গত এক বছর কারখানায় কাজের পর্যাপ্ত ক্রয়াদেশ না থাকা এবং শত চেষ্টা করেও পর্যাপ্ত কাজের অর্ডার সংগ্রহ করতে না পারা, উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার কারণে ক্রমাগত এয়ারশিপমেন্ট, ডিসকাউন্ট ও অর্ডার বাতিল হওয়ায় কর্তৃপক্ষ প্রচুর আর্থিক লোকসানের সম্মুখীন হয়। এমন পরিস্থিতিতে কারখানাটি পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে কর্তৃপক্ষ কারখানাটি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নোটিশে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, কারখানার সব শ্রমিককে প্রয়োজনের অতিরিক্ত বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬-এর বিধান অনুযায়ী বকেয়া মজুরি ও অন্যান্য পাওনা আগামী ১০ মে কারখানা থেকে পরিশোধ করা হবে।

তবে কোম্পানির চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ তালুকদার জানান, বিক্ষোভের সময় শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করতে গেলে খবর পেয়ে শিল্প পুলিশ গিয়ে তাঁদের নিয়ন্ত্রণ করে। কারখানা এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শ্রমিকদের বিক্ষোভ চলছে। মালিকপক্ষ ও বিজেএমইএ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করা হবে।