আজ শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** ময়মনসিংহে সুটকেসের ভেতর যুবকের লাশ * ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষা স্থগিত * দিনাজপুরে বজ্রপাতে নিহত ৬ * দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে 'সুপার ম্যালেরিয়া' * রিয়ালের পথের ইতি টানতে চান বেনজেমা * মধ্যবাড্ডায় অগ্নিকাণ্ডে মায়ের মৃত্যু, ২ সন্তান দগ্ধ * পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই: বাড়ছে ক্ষোভ, ঝিমিয়ে পড়া

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ৩০.১০.২০১৭

রংপুরে গো-খাদ্যর তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। গরুর খামারিরা গো-খাদ্য সঙ্কটে চরম বিপাকে পড়েছে।

সাম্প্রতিক বন্যায় জমির ফসল পানিতে নষ্ট হওয়ায় এ সমস্যা আরো প্রকট হয়েছে। বন্যার কারণে ডেইরি শিল্পেও কৃষকদের ক্ষতির প্রভাব পড়েছে। কৃষকদের জমির ফসল পানিতে তলিয়ে নষ্ট হওয়ায় বেড়েছে খড়ের দাম। যেখানে আগে প্রতি পোন (৮০টি) খড়ের দাম ছিল ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা, সেখানে বর্তমানে প্রতি পোন খড়ের দাম ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা।

এছাড়া চোপড়, ভুষি, খৈলের দামও আকাশছোঁয়া। এমতাবস্থায় খামারিরা তাদের গরু কম মূল্যে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে। কথা হয় জেলার পীরগাছা উপজেলার দাদন গ্রামের কৃষক সাইফুল ইসলাম (৪১) সাথে। তিনি জানান, শখেরবসে তিনটি গরু পালন শুরু করেছিলাম। কিন্তু গো-খাদ্যের এতটাই অভাব ও দাম চড়া যে অনেকটা বাধ্য হয়ে হাটে নিয়ে যাচ্ছি।

গরু খামারি তোজাম্মেল হক জানান, গরুর খাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় খামার নিয়ে আমি চিন্তায় আছি। যে অনুপাতে গো-খাদ্যের দাম সে অনুযায়ী গরু বিক্রি তো করতে পারবো না। অনেকটা লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে কষ্ট করে হলেও খামার ব্যবসা ধরে আছি। তিনি আরও জানান, বিক্রির জন্য আমার খামারের গরুগুলো গত হাটে তুলেছিলাম। দাম তুলনামূলক কম হওয়াতে ফেরত নিয়ে এসেছি।

গো-খাদ্য খুচরা ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন জানান, সব ধরনের গো-খাদ্যের দাম বেড়েছে। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, দাম আরও বাড়তে পারে। এতে আমাদের খুচরা বিক্রি অনেক কমে গেছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার মাহবুবুল আলম জানান, বিগত বন্যায় ধানের ক্ষতি হওয়ায় খড়ের দাম মাত্রাতিরিক্ত বেড়ে গেছে। এর পাশাপাশি অন্য গো-খাদ্যের দামও কিছুটা বেড়েছে। এতে করে খামারিদের জন্য খামার পরিচালনা করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।