মুদ্রণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক  | তারিখঃ ২৭.০৭.২০১৫

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বলেন জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সিরিয়ায় স্থল সেনা পাঠানোর কোন পরিকল্পনা এখন নেই তিনি আরও বলেন, সিরিয়া-তুরস্ক সীমান্তের কাছে আইএসের অবস্থান ও ইরাকে কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদী পিকেকের ওপর বিমান হামলা অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে পারে।

তুরস্কের সুরুক শহরে বোমা হামলায় ৩২ জন নিহত হওয়ার ঘটনাসহ গত সপ্তাহে দেশটিতে কয়েক দফা সহিংস হামলার জবাবে তুরস্ক আইএস ও পিকেকের ওপর বিমান অভিযান শুরু করেছে।ন্যাটো পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে মঙ্গলবার জরুরী বৈঠক করবে।এদিকে সিরিয়ার কুর্দি পার্টির সশস্ত্র শাখা কুর্দিশ পিপলস প্রটেকশন ইউনিট (ওয়াইপিজে) সোমবার সিরিয়ার ভিতরে কুর্দি ইউনিটগুলোর ওপর হামলা বন্ধে তুরস্কের প্রতি আহবান জানিয়েছে।তুরস্কের সামরিক অভিযানের পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতোগলু সংবাদপত্রের সম্পাদকদের সঙ্গে এক বৈঠক বলেন, আঞ্চলিক সংঘাতে  নতুন মাত্রা যুক্ত হল। প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে দৈনিক পত্রিকা হুরিয়াত বলেছে, তুরস্কের বাহিনী কার্যকরভাবে ব্যবহৃত হলে সিরিয়া, ইরাক এমনকি গোটা অঞ্চলের পট পরিবর্তন হতে পারে। সম্প্রতি তুরস্ক আইএস বা পিকেকের সমর্থক সন্দেহে কয়েকশ লোককে আটক করেছে। পুলিশ ইস্তাম্বুল নগরীতে আইএস ও পিকেকে সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে। এতে গাজি জেলায় গত তিন দিন ধরে দাঙ্গা চলছে। কমপক্ষে এক কর্মী ও এক পুলিশ নিহত হয়েছে।যুক্তরাষ্ট্র সহিংসতা এড়াতে তুরস্ক ও পিকেকে উভয়কে আহবান জানিয়েছে। তবে এও বলেছে, কুর্দি বিদ্রোহীদের হামলা থেকে নিজেদের সুরক্ষার অধিকার তুরস্কের রয়েছে।কুর্দিশ পিপলস প্রটেকশন ইউনিট (ওয়াইপিজে) সোমবার এক বিবৃতিতে জানায়, সিরিয়ার ভিতরে কুর্দি নিয়ন্ত্রিত জরমিখার গ্রামে রোববার সন্ধ্যায় তুরস্কের ট্যাংক থেকে গোলা নিক্ষেপ করা হয়েছে। এর এক ঘন্টা পর ওয়াইপিজের কয়েকটি গাড়ি কোবানের পূর্বাঞ্চলে থাকা তুরস্কের সামরিক বাহিনীর ব্যাপক হামলার মুখে পড়ে।