আজ রবিবার, ২৫ জুন, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** মেহেরপুর সদর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ১১ মামলার এক আসামির মৃত্যু * ক্রেতা সেজে দোকান থেকে মালামাল চুরির অভিযোগে চট্টগ্রামে তিন জন গ্রেপ্তার * দেশের চাহিদার ৯৮ শতাংশ ওষুধ স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হয়: সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী * লন্ডনে হামলাকারী দুইজনের নাম জানিয়েছে পুলিশ * সাবেক প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি লতিফুর রহমান মারা গেছেন

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

খাদিজা না আসায় সাক্ষ্য গ্রহণ পিছিয়েছে

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ০৮.০১.২০১৭

শারীরিক অবস্থার কারণে সিআরপির চিকিৎসকরা ছাড়পত্র না দেওয়ায় ‘বদরুলে’র বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দিতে আসেননি খাদিজা বেগম নার্গিস।

ফলে পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করে ওই দিন ভিকটিম খাদিজাকেও আদালতে হাজির করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।রবিবার আলোচিত হামলার ঘটনায় মূল ভিকটিম খাদিজার সাক্ষ্যগ্রহণের পূর্বনির্ধারিত তারিখ ছিল। সিলেট মূখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে মামলার একমাত্র আসামী ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলমকেও হাজির করা হয়।

তবে সিআরপি থেকে ছাড়পত্র না পাওয়ায় সাক্ষ্যদিতে হাজির হতে পারেননি খাদিজা। এক মাসের মধ্যে তিনি আদালতে হাজির হওয়া সম্ভব নয় বলে চিকিৎসকরা আদালতে আবেদন জানিয়েছেন। আদালত আবেদন আমলে নিয়ে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি তাকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেন। সিলেট মহানগর আদালতের অতিরিক্ত পিপি এডভোকেট মাহফুজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।খাদিজা হত্যাচেষ্টা মামলায় ইতিমধ্যেই ৩ কার্যদিবসে মামলার ৩৭ আসামীর মধ্যে ৩৩ জন সাক্ষ্য প্রদান করেছেন। খাদিজা বর্তমানে ঢাকার সাভারের সিআরপিতে চিকিৎসাধীন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩ অক্টোবর খাদিজা বেগম নার্গিসকে এমসি কলেজের পুকুরপাড়ে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অনিয়মিত শিক্ষার্থী (পরে বহিষ্কৃত) ও শাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম।

ঘটনার পরপরই শিক্ষার্থীরা ধোলাই দিয়ে বদরুলকে পুলিশে সোপর্দ করেন। এ ঘটনায় বদরুলকে একমাত্র আসামি করে মামলা দায়ের করেন তার চাচা আবদুল কুদ্দুস। পরে ৫ অক্টোবর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় বদরুল। আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণ করেন।৩ অক্টোবর দিবাগত রাতেই খাদিজাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকতে থাকতে বেঁচে ফিরেন খাদিজা। পরে তাকে থেরাপি দেওয়ার জন্য সিআরপিতে নেওয়া হয়।

এদিকে, গতবছরের ৮ নভেম্বর খাদিজা হত্যা চেষ্টা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিলেট নগরীর শাহপরান থানার এসআই হারুনুর রশীদ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। পরে ১৫ নভেম্বর আদালত চার্জশিট গ্রহণ করেন। ২৯ নভেম্বর আদালত বদরুলের বিরুদ্ধে ৩২৪, ৩২৬ ও ৩০৭ ধারায় অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর নির্দেশ দেন। পরে ৫ ডিসেম্বর, ১১ ডিসেম্বর ও ১৫ ডিসেম্বর বদরুলের বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দেন ৩৩ জন।