Wednesday 7th of December 2016

সদ্য প্রাপ্তঃ

***রোহিঙ্গা ইস্যুতে সংসদে প্রধানমন্ত্রী,সাহায্য দেয়া যায়, কিন্তু সীমান্ত খুলে দিতে পারি না***

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

UCB Debit Credit Card

অবসরের পর রায় লেখা বিচারকদের বিচারের দাবি

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | তারিখঃ ১২.০৩.২০১৬

অবসরে গিয়ে রায় লেখা বিচারকদের ফৌজদারি আইনে বিচারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম। 

আজ শনিবার দুপুরে সিলেট নগরীর দরগাহ গেইটের পাশে একটি হোটেলের কনফারেন্স হলে আয়োজিত সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা দলের কর্মিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ এই দাবি জানান।

হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, এ সরকারকে ভোটের মাধ্যমে সরানো সম্ভব নয়। কারণ তারা মানুষকে ভোটকেন্দ্রে যেতে দিচ্ছে না। সর্বশেষ ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও পৌরসভা নির্বাচনেও মানুষকে ভোটকেন্দ্রে যেতে দেয়নি। এখন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও যেতে দেবে না। যার কারণে কেউ প্রার্থী হতে চাচ্ছে না, আর যারা দাঁড়িয়েছে তাঁদের বাড়িতে গিয়ে হত্যা-গুম, অপহরণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। 

জেলা মুক্তিযোদ্ধা দলের আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কল্যাণপার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মো. ইব্রাহিম বীর প্রতীক, মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত, সাবেক সংসদ সদস্য দিলদার হোসেন সেলিম, মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি আলহাজ আবুল হোসেন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমদ খান।

সভায় বাংলাদেশ কল্যাণপার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মো. ইব্রাহিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের কেউই রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধাদের মূল্যায়ন করেনি। কারণ তারা রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা নয় তারা কলকাতার শরণার্থী মুক্তিযোদ্ধা।

টিপাইমুখ বাঁধ প্রসঙ্গে মেজর (অব.) হাফিজ বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন ভারতকে তিনবার চিঠি দিয়েছেন। কিন্তু শেখ হাসিনা কিংবা আওয়ামী লীগের কোনো মন্ত্রী এ বাঁধের বিরুদ্ধে কোনো কথা বলেনি। এতে মনে হচ্ছে তারা বাংলাদেশকে ভারতের একটি অঙ্গরাজ্য বানিয়ে ফেলেছে।’

জেলা মুক্তিযোদ্ধা দলের কর্মিসভা শেষে মহানগর মুক্তিযোদ্ধা দলের কর্মিসভায় সভাপতিত্ব করেন দলের আহ্বায়ক সালেহ আহমদ খসরু।