আজ বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

সদ্য প্রাপ্তঃ

*** সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় * সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় ১০ অক্টোবর * বন্যায় টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়কে ধস; উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ * রাজারবাগে এক নারী কনস্টেবলকে ধর্ষণের অভিযোগে তার এক সহকর্মী গ্রেপ্তার * কোটালীপাড়ায় হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ফায়ারিং স্কোয়াডে ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায়

Bangladesh Manobadhikar Foundation

Khan Air Travels

বানিয়াচঙ্গে তিন মহিলার উপর এসিড নিক্ষেপ

বিডিনিউজডেস্ক ডেস্ক | ২৭.০৩.২০১৬

হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গ উপজেলার কুমড়ি পেরেংগিটিলা গ্রামে কোটি টাকার সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের ধরে একই পরিবারের দুই বোন সহ ৩ মহিলার উপর এসিড নিক্ষেপ করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

গুরুতর আহত অবস্থায় সাফিয়া খাতুন (৩৫), মনোয়ারা খাতুন (৩২) ও আমেনা খাতুন (৩০) কে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের সাথে কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে একই গ্রামের সাদিকুর রহমানের। এনিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত আদালতে মামলা মোকদ্দমাও রয়েছে। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে সাদিকুর রহমান ও তার লোকজন রিপন মিয়া, লিমন মিয়া, সুবেল মিয়া, আশক আলী সহ একদল দুর্বৃত্তরা আব্দুর রাজ্জাকের ঘরে প্রবেশ করে তার পরিবারের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

এ সময় আব্দুর রাজ্জাক ঘরের পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেলেও তার পরিবারের ৩ মহিলার উপর এসিড নিক্ষেপ করে এবং ভাংচুর চালায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে আব্দুর রাজ্জাক সাংবাদিকদের জানায়, তার সাথে কোটি টাকার সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ থাকায়ই সাদিকুর রহমান ও তার লোকজন তাদের উপর হামলা এবং বাড়ি ঘরে ভাংচুর চালায়।

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার মমিন উদ্দিন চৌধুরী সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, মনোয়ারা, আমেনা খাতুন ও সাফিয়া খাতুন নামে ৩ মহিলা এসিড আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে এসিড। তবে পরীক্ষা নিরীক্ষার বুঝা যাবে আসলে এসিড কিনা।