Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Bangadesh Manobadhikar Foundation

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ০২.০৪.২০১৯ 

তৈরি পোশাক শিল্পের মতো অন্যান্য শিল্প খাতেও ব্যাক টু ব্যাক এলসি পদ্ধতি অনুমোদনের প্রস্তাব দিয়েছে

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)। গতকাল শিল্পমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে এ প্রস্তাব দেয় সংগঠনের নবনির্বাচিত পরিচালনা পর্ষদ। এদিকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি বা এসএমই শিল্পের জন্য একটি পৃথক ব্যাংক স্থাপনের দাবিও জানানো হয়েছে সংগঠনটির পক্ষ থেকে।

ডিসিসিআইয়ের নবনির্বাচিত পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা গতকাল শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত সাক্ষাতে ডিসিসিআইয়ের সভাপতি ওসামা তাসীর, ঊর্ধ্বতন সহসভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী, সহসভাপতি ইমরান আহমেদ, পরিচালক মো. রাশেদুল করিম মুন্না, হোসেন এ. সিকদার, এনামুল হক পাটোয়ারী, এসএস জিল্লুুর রহমান, আন্দালিব হাসান, দ্বীন মোহাম্মদ, আশরাফ আহমেদ, নূহের লতিফ খান উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাত্কালে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি ওসামা তাসীর শিল্প খাতের বহুমুখীকরণের লক্ষ্যে গার্মেন্ট শিল্পের মতো অন্যান্য অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত শিল্প খাতে ব্যাক টু ব্যাক এলসি অনুমোদনের প্রস্তাব করেন। এ সময় তিনি জানান, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বৈশ্বিক বিদেশী বিনিয়োগ যেখানে ২৩ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে, সেখানে বাংলাদেশে তা ৫ দশমিক ১২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ২ দশমিক ৫৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। তিনি শিল্প খাতে বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণে ‘বিদেশী বিনিয়োগ উন্নয়ন টাস্কফোর্স’ গঠনের প্রস্তাব করেন। এছাড়া বৈশ্বিক হালাল পণ্যের বাজারে বাংলাদেশী পণ্য রফতানির জন্য দেশে বিশেষায়িত হালাল পণ্যভিত্তিক শিল্প উৎসাহিত করা উচিত এবং ঢাকা চেম্বার দেশে একটি আন্তর্জাতিক মানসম্মত হালাল পণ্যের সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান স্থাপনে আগ্রহী বলে শিল্পমন্ত্রীকে জানান তিনি।

এছাড়া বৈঠকে শিল্প খাতে পণ্য বহুমুখীকরণ, বিদেশী বিনিয়োগ বৃদ্ধি, সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ প্রদান, এসএমই রফতানি উন্নয়ন ডেস্ক স্থাপন, বৃহৎ শিল্পের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজভিত্তিক এসএমই মডেল অনুসরণ, সরকারি মালিকানাধীন শিল্প প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন, শিল্প সহায়ক অবকাঠামো তৈরি, দক্ষ জনবল সৃষ্টি ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা হয়। এ সময় শিল্প খাতের জ্বালানি নিরাপত্তা জোরদার, ব্যবসা সহজীকরণ, নিরাপদ কেমিক্যাল ব্যবস্থাপনা, হালাল পণ্যের সার্টিফিকেশন এবং গবেষণা ও উদ্ভাবন খাতে বিনিয়োগ জোরদারের তাগিদ দেয়া হয়।

শিল্প মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বৈঠকে ডিসিসিআই পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা পৃথক এসএমই ব্যাংক স্থাপনের গুরুত্ব তুলে ধরেন। এ সময় তারা বলেন, এর মাধ্যমে দেশে উৎপাদিত শিল্পপণ্যের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়বে। বর্তমানে গৃহ বা গাড়ি ঋণ বাবদ এসএমই খাতের অর্থায়নের বিরাট অংশ চলে যাচ্ছে। তারা এর পরিবর্তে শুধু উৎপাদনমুখী শিল্প ও সেবা খাতে অর্থায়নের জন্য এসএমই ব্যাংকের ম্যান্ডেট নির্ধারণ করে দেয়ার সুপারিশ করেন। পাশাপাশি ডিসিসিআই নেতারা শিল্প খাতে বিনিয়োগের জন্য সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে পৃথক অর্থায়ন তহবিল গঠনের প্রস্তাব করেন। দেশের শিল্প খাতে পণ্য বহুমুখীকরণের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে তারা তৈরি পোশাক শিল্পের সাফল্যের দৃষ্টান্ত অনুসরণ এবং উদ্ভাবন ও প্রযুক্তিগত উন্নয়নে আর্থিক প্রণোদনা বৃদ্ধির পরামর্শ দেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জনে বর্তমান সরকার ক্ষুদ্র্র ও মাঝারি শিল্প খাতের বিকাশে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করছে। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে শিল্প খাতে ঋণের সুদহার এক অংকে নির্ধারণের বিষয়ে নির্দেশনা রয়েছে। তিনি বর্তমান সরকারকে ব্যবসা ও শিল্পবান্ধব উল্লেখ করেন এবং ব্যবসায়ী ও শিল্পোদ্যোক্তাদের যেকোনো সমস্যার সমাধানে সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানান।

পৃথক এসএমই ব্যাংক স্থাপনের প্রস্তাবকে বাস্তবসম্মত বলে মন্তব্য করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, এটি বাস্তবায়ন হলে দেশের এসএমই সেক্টরের উদ্যোক্তারা শক্তিশালী হবেন। এর মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতি জোরদার হবে এবং অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার চামড়া শিল্পের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে রাজশাহী ও চট্টগ্রামে দুটি ট্যানারি শিল্প পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি ট্যানারি বর্জ্য থেকে বাই-প্রডাক্ট তৈরির কার্যক্রম চলছে।