মুদ্রণ

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ২৯.০৩.২০২১

শবে বরাতে রুটি গোশত আমাদের অনেকের পচ্ছন্দ। চলুন জেনে নেওয়া যাক শবে বরাতের রুটি গোশতের কয়েকটি রেসিপির বিষয়ে।

চালের আটার রুটি

উপকরণ

চালের গুঁড়া দেড় কাপ, লবণ পরিমাণমতো এবং পানি পরিমাণমতো

যেভাবে তৈরি করবেন

১.   প্রথমে একটি হাঁড়ি চুলায় দিয়ে তাতে পৌনে দুই কাপ পানি নিয়ে গরম করুন।

২.   পানি ফুটতে শুরু করলে সামান্য লবণ দিন।

৩.   এবার এর মধ্যে দেড় কাপ চালের গুঁড়া দিন। পাঁচ মিনিট মৃদু আঁচে জ্বাল দিয়ে ঢেকে রাখুন। ঢেকে রাখলে চালের গুঁড়া ভালোমতো সিদ্ধ হয়।

৪.   পাঁচ মিনিট পর চুলা থেকে নামিয়ে কাঠের খুন্তি বা কাঠি দিয়ে ভালোমতো নাড়ুন। দরকার হলে সামান্য পানি মিশিয়ে নিতে পারেন। এই অবস্থায় ১০ মিনিট রেখে দিন হালকা ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য। খুব বেশি দেরি করা যাবে না। কারণ গরম গরমই ভালোমতো মথে কাই করতে হবে। যত ভালোভাবে কাই হবে, তত ভালো রুটি হবে।

৫.   এবার রুটি বানানোর জন্য লম্বা করে রোলের মতো খামির করে ছোট ছোট টুকরা করে নিন।

৬.   এই চালের আটার টুকরাগুলো গোল বল বানিয়ে তারপর ভেজা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন।

৭.   এবার পাতলা করে রুটি বানিয়ে ফেলুন।

৮.   চুলায় তাওয়া গরম হতে দিন। গরম হয়ে গেলে বেলে নেওয়া রুটি তাওয়ায় সেঁকে নিন। ব্যস, হয়ে গেল পারফেক্ট চালের রুটি।

৯.  গরম গরম পরিবেশন করুন ঝাল গরুর মাংস বা মুরগির মাংসের সঙ্গে।

পরোটা

উপকরণ

ময়দা ২ কাপ (৪টি পরোটার জন্য), ডিম ১টি, চিনি ১ চামচ, দুধ ১ কাপ (২ কাপ ময়দার জন্য), লবণ একচিমটি, ঘি বা তেল ভাজার জন্য।

যেভাবে করবেন

১.   ময়দা ডিম, দুধ, লবণ ও চিনি দিয়ে মেখে ভেজা কাপড় দিয়ে জড়িয়ে এক ঘণ্টা রাখুন। এরপর গোল গোল লেচি করে নিন। তারপর রুটি বেলে নিন।

২.   এবার রুটির ওপর একটু ঘি বা সাদা তেল মাখিয়ে দিন। এর ওপর একটু শুকনা ময়দা ছড়িয়ে দিন। এবার রুটিটি ভালো করে ভাঁজ করতে হবে।

৩.   রুটিটি যেভাবে কাগজের হাতপাখা তৈরি করার সময় মুড়ি, সেভাবেই মুড়তে হবে এপিঠ-ওপিঠ করে। এর জন্য রুটিটি চৌকো করেও বেলতে পারেন। এতে বেশি সুবিধা হবে।

৪.   মুড়ে নিয়ে এবার ওটা লম্বা থাকবে। ওটা গোল করে পেঁচিয়ে নিন। হাত দিয়ে চাপ দিয়ে গোল লেচির মতো করে নিন। তারপর আস্তে আস্তে বেলুন। ব্যস, এবার কড়াইয়ে তেল দিয়ে ভাজলেই রেডি পরোটা।

কষা মাংস

উপকরণ

খাসির মাংস ৫০০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, কাশ্মীরি লাল মরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, আদা-রসুন বাটা ১ চা চামচ, শাহি গরম মসলা ১ চা চামচ, লবণ পরিমাণমতো, সরিষার তেল ১ টেবিল চামচ (মাংস ম্যারিনেটের জন্য), সরিষার তেল ৪ টেবিল চামচ, সূর্যমুখী তেল ২ টেবিল চামচ, বড় তেজপাতা ১টি, সবুজ এলাচ ২-৩টি, দারচিনি ২-৩ টুকরা, লবঙ্গ ২-৩টি, কাটা পেঁয়াজ ৪-৫টি, আদা-রসুনের পেস্ট ২ চামচ, চিনি (ইচ্ছানুসারে), বড় সাইজের টমেটো ১টি, দই ২ টেবিল চামচ, গরম মসলা গুঁড়া ১ টেবিল চামচ এবং প্রয়োজনমতো গরম পানি।

যেভাবে তৈরি করবেন

১.   মাংস ধুয়ে পানি ঝরিয়ে একটি বাটিতে নিয়ে তেল, হলুদ গুঁড়া, কাশ্মীরি লাল মরিচের গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, আদা-রসুন বাটা, শাহি গরম মসলা ও লবণ দিয়ে ভালোভাবে ম্যারিনেট করে নিন। এবার বাটির মুখ ফয়েল পেপার দিয়ে এঁটে ফ্রিজের মধ্যে ঘণ্টাখানেক রেখে দিন।

২.   সরিষার তেল ও সূর্যমুখী তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে প্যানে গরম করুন। এতে সামান্য চিনি ও গরম মসলা দিন। চিনি ক্যারামেলাইজ হয়ে যাওয়ার পর কাটা পেঁয়াজ ও লবণ দিয়ে মাঝারি আঁচে রেখে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন।

৩.   পেঁয়াজ লাল হয়ে এলে আদা ও রসুন বাটা দিন। এরপর কেটে রাখা টমেটো দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন।

৪.   টমেটো সিদ্ধ হয়ে এলে হলুদ, জিরা গুঁড়া, ধনে গুঁড়া ও কাশ্মীরি লাল মরিচের গুঁড়া দিয়ে দুই থেকে তিন মিনিট রান্না করুন।

৫.   এবার ম্যারিনেট করে রাখা মাংস প্যানে দিয়ে উঁচু আঁচে রান্না করুন মাংস ভালোমতো সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত। এরপর কিছুটা গরম পানি দিয়ে ভালোভাবে নাড়ুন ঝোল মাখো মাখো হয়ে যাওয়া পর্যন্ত।

৬.   মাংস থেকে তেল বেরিয়ে এলে আরো ২ কাপ পানি দিন এবং ভালোভাবে নেড়েচেড়ে দিন। শেষে গরম মসলা দিয়ে নামিয়ে নিন।

৭.   গরম গরম রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন মজাদার কষা মাংস।

আলু গোশত

উপকরণ

হলুদের গুঁড়া দেড় চা চামচ, মরিচের গুঁড়া ২ চা চামচ, জিরা বাটা ৩ চা চামচ, গরুর মাংস ১ কেজি, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, রসুন বাটা ৩ চা চামচ, আদা বাটা ২ চা চামচ, এলাচ ৪টি, লবঙ্গ ৪টি, দারচিনি ৩-৪ টুকরা, লবণ আন্দাজমতো, তেল দেড় টেবিল চামচ এবং মাঝারি আলু টুকরা করে কাটা ৪টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

১.   আলু ছাড়া ওপরের সব উপকরণ একসঙ্গে মাখিয়ে চুলায় বসিয়ে ঢেকে দিন।

২.   মাংস শুকিয়ে এলে ২ কাপ পানি দিয়ে কষিয়ে নিন।

৩. পানি হালকা শুকিয়ে এলে আলু ও সামান্য পানি দিয়ে কষিয়ে নিন।

৪.   কষানো হয়ে গেলে পরিমাণমতো পানি দিয়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে পাত্র ঢেকে কড়া জ্বাল দিন।

৫.   ঝোল মাখা মাখা হয়ে গেলে নামিয়ে পছন্দ অনুযায়ী পরিবেশন করুন।

হাঁস ভুনা

উপকরণ

হাঁস ১টি (পরিষ্কার করে কেটে ধুয়ে নিন), সরিষার তেল ও সয়াবিন তেল ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ ৩-৪টি, আদা বাটা ১ কাপের ৪ ভাগের ১ ভাগ, রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ, নারকেল দুধ ২ কাপ, জিরা ও ধনে বাটা ১ চা চামচ করে, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, লাল মরিচের বাটা অথবা গুঁড়া ২ টেবিল চামচ, আস্ত গরম মসলা (এলাচ ৪-৫টি, দারচিনি ৩ টুকরা, লবঙ্গ ২টি, তেজপাতা ১টি), টালা জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৫টি এবং গরম মসলা গুঁড়া ১ চা চামচ।

যেভাবে করবেন

১.   পেঁয়াজের খোসা ছাড়িয়ে চুলার আগুনে দিন।

২.   বাইরের আবরণ পোড়া পোড়া (যেভাবে বেগুন পুড়ে ভর্তা করা হয়) হলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে বেটে নিন।

৩.   কড়াইয়ে তেল দিয়ে আস্ত গরম মসলা ও সব বাটা মসলা দিন। হলুদ, মরিচ গুঁড়া ও লবণ দিন। আধাকাপ পানি দিয়ে মসলা কষিয়ে নিন।

৪.   এবার হাঁসের মাংস দিন। মাঝারি আঁচে কষিয়ে নিন। ১ কাপ পানি দিয়ে আরো কিছুক্ষণ কষিয়ে নারকেল দুধ দিন। কিছুক্ষণ ফুটলে চুলার আঁচ কমিয়ে ঢাকনা দিয়ে মাংস সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত রান্না করুন। ১ ঘণ্টা লাগবে।

৫.   এখন পেঁয়াজ বেরেস্তা, কাঁচা মরিচ ও সামান্য চিনি দিন। গরম মসলা গুঁড়া ও টালা জিরা গুঁড়া দিয়ে মিশিয়ে নিন। লবণ দেখে ১০ মিনিট অল্প আঁচে ঢেকে রাখুন। নামিয়ে চালের রুটি বা ছিটা রুটি, গরম ভাত বা পরোটার সঙ্গে পরিবেশন করুন।